এসি রবিউলের বাড়ি মানিকগঞ্জে শোকের মাতম
Saturday, 2nd July , 2016, 02:31 pm,BDST
Print Friendly, PDF & Email

এসি রবিউলের বাড়ি মানিকগঞ্জে শোকের মাতম



লাস্টনিউজবিডি, ২ জুলাই,  মানিকগঞ্জ: ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গিদের গুলি ও গ্রেনেড হামলায় নিহত মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার সহকারী কমিশনার (এসি) রবিউল ইসলামের বাড়ি মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার কাটিগ্রাম এলাকায় চলছে শোকের মাতম।

শুক্রবার রাতে তিনি নিহত হওয়ার খবর পেয়ে প্রবীণ মা ও স্বজনের আহাজারিতে এলাকার বাতাস ভারি হয়ে উঠেছে। দেশের জন্য আত্নত্যাগী এই পুলিশ কর্মকর্তার জন্য এলাকা তথা পুরো জেলায় নেমেছে শোকের ছায়া।

সকালে রবিউলের বাড়ি গিয়ে দেখা যায়, ছেলে হারিয়ে প্রবীণ মা বার বার মূর্ছা যাচ্ছেন। স্ত্রী ও পরিবারের লোকজন ঢাকায় লাশের কাছে গেছেন। আহাজরি করছেন স্বজনরা। প্রতিবেশী, আত্নীয়-স্বজন ও এলাকাবাসী আসছেন সেখানে।

কেউ কাউকে শান্তনা দেয়ার ভাষা পাচ্ছেন না। সকলের চোখেই পানি। শোকে স্তব্ধ সবাই। দুপুর ১২টার দিকে মানিকগঞ্জ পুলিশ সুপার মাহফুজুর রহমান গিয়ে স্বজনদের সঙ্গে কথা বলেন। সেখানে তিনি সাংবাদিকদের জানান, বিকাল চারটায় ঢাকার রাজারবাগ পুলিশ লাইনে রবিউলের প্রথম জানাযা দেয়া হবে। এরপর মানিকগঞ্জের বাড়ি আনা হবে লাশ। বাড়িতেই তাকে দাফন করার কথা রয়েছে বলেও জানান পুলিশ সুপার।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার রাতে ওই বেকারিতে জঙ্গিরা ঢুকে দেশি-বিদেশি নাগরিকদের জিম্মি করে। এ সময় হ্যান্ড মাইকে তাদের বেরিয়ে আসার কথা বললে পুলিশকে লক্ষ্য করে জঙ্গিরা গুলি ও গ্রেনেড নিক্ষেপ করে।

এতে এসি রবিউল ইসলাম ও বনানী থানার ওসি গুরুতর আহত হন। তারা ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। আরো আহত হন অন্তত ৩০ পুলিশ সদস্য।

শনিবার সকালে যৌথ বাহিনী ওই বেকারিতে কমান্ডো অভিযান চালিয়ে জিম্মিদের উদ্ধার করে। এ সময় ছয় জঙ্গি নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

রবিউলের মামাতো ভাই রুবেল হোসেন ও স্বজনরা সংক্ষিপ্ত জীবনীতে জানান, মৃত আবদুল মালেক ও করিমন নেছার ছেলে রবিউল। দুই ভাইয়ের মধ্যে বড় তিনি। রবিউলের ডাকনাম কামরুল। তাকে এই নামে ডাকতেন পরিবার, আত্নীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব ও ঘনিষ্টজনেরা।  আর দেশের জন্য জঙ্গি দমনে আত্নত্যাগে রবিউল নামটি স্মরণীয় হলো পুলিশ বাহিনী, জাতি ও বিশ্বাঙ্গনে।

কাটিগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কাটিগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেন রবিউল। এরপর ঢাকার ধামরাই উপজেলার কালামপুর আতাউর রহমান খান ডিগ্রি কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন।

এরপর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে করেন অনার্স মাস্টার্স। ২০০৮ সালে ধামরাই উপজেলার ডাউটিয়া এলাকার সালমা আক্তারকে বিয়ে করেন। তাদের কোল জুড়ে আসে সামিউর ইসলাম (৬)। আর সাত মাসের আরেক অনাগত সন্তান স্ত্রী গর্ভে রেখেই আত্নত্যাগ করলেন পুলিশের এই কমিশনার।

রবিউল ২০১১ সালে গ্রামেই প্রতিষ্ঠা করেন ব্লুস বিশেষায়িত একটি প্রতিবন্ধী স্কুল। পরে ইতালি চলে যান তিনি। সেখান থেকে এসে বিসিএসের ৩০তম ব্যাচে উত্তীর্ণ হয়ে ২০১২ সালের জুন মাসে পুলিশ বাহিনীতে যোগদান করেন রবিউল। স্ত্রী ও ছেলেকে নিয়ে রাজারবাগ পুলিশ লাইন কোয়ার্টারে থাকতেন তিনি।

লাস্টনিউজবিডি/এমবি

Print Friendly, PDF & Email

You must be logged in to post a comment Login

পেপার কর্ণার
Lastnewsbd.com
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন >
আর্কাইভ
মতামত
বাংলাদেশে সাংবাদিকতার সঙ্কট ও সম্ভাবনা: বর্তমান প্রেক্ষিত
।।মনজুরুল আহসান বুলবুল।। গণমাধ্যম বা সাংবাদিকত...
বিস্তারিত
সাক্ষাৎকার
সফল হওয়ার গল্প, সাফল্যের পথ
।।আলীমুজ্জামান হারুন।। ১৯৮১ সালে যখন নিটল মটরসের য...
বিস্তারিত
জেলার খবর
Rangpur

    রংপুরের খবর

  • বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ সড়ক দাবীতে কুড়িগ্রামে মানববন্ধন
  • কুড়িগ্রামে পৈতৃক সম্পত্তি রক্ষায় কৃষক পরিবারের সংবাদ সম্মেলন
  • স্বামী পরিত্যক্তা নারীকে ধর্ষণ: যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

[page_polls]