Wednesday, 16th June , 2021, 01:55 pm,BDST
Print Friendly, PDF & Email

মুক্তিযোদ্ধাদের রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন নিয়ে বিতর্ক অনাকাক্সিক্ষত, অমর্যাদাকর


।। আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া ।।
রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মুক্তিযোদ্ধাদের দাফন করার সিদ্ধান্ত নেন বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা, যখন তিনি প্রথমবারের মতো রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে আসেন ১৯৯৬ সালে। এটি ছিল শেখ হাসিনার শাসনামলের অত্যুজ্জ্বল রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত। এত বছর পরে হঠাৎ একটি অনাকাক্সিক্ষত ও দুঃখজনক বিতর্ক সৃষ্টি করা হয় এই মহান সিদ্ধান্তটিকে ঘিরে। অহেতুক বিতর্কটি সৃষ্টি হয় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির একটি সিদ্ধান্তকে কেন্দ্র করে। ওই সিদ্ধান্তে একজন মুক্তিযোদ্ধা মারা গেলে তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন অনুষ্ঠানে নারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)-দের উপস্থিতির বিষয়টি নিয়ে। যে অজুহাত তুলে সংসদীয় কমিটি এই বিতর্কিত সুপারিশটি করেছেন তা অত্যন্ত স্পর্শকাতর, সংবিধানবিরোধী এবং মহান মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি অবমাননাকরও বটে। মহান জাতীয় সংসদ থেকে শুরু করে সারা দেশে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। যে মুহূর্তে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি তথা বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায়, সে সময় এমন একটি ঘটনা ঘটা কিছুতেই বাঞ্ছনীয় ছিল না।


মর্মন্তুদ ১৫ আগস্ট ১৯৭৫-এর রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের পর শুরু হয়েছিল একদিকে ইতিহাস বিকৃতির পালা, অন্যদিকে মহান মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও চেতনাকে বিতর্কিত করার অপচেষ্টা। আত্মপ্রতারণার গিলাফ দিয়ে গোটা জাতিকে আষ্টেপৃষ্ঠে মুড়ে দেওয়া হয়েছিল। ছলচাতুরীর কফিন দিয়ে দাফন করা হয়েছিল আমাদের সবকিছু—আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও অহংকারকে। এমনকি মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ এবং চেতনাকেও। জাতির পিতাসহ মুক্তিযুদ্ধের মহান সিপাহসালারদের চরিত্র হনন করে ইতিহাস থেকে বিদায় করার আয়োজন করা হয়েছিল। অপরদিকে কিছু খলনায়ককে এনে জাতির ইতিহাসে অভিষিক্ত করার প্রয়াস চালানো হয়। দীর্ঘ ২১ বছর পর জাতীয় জীবনে কালো অধ্যায়ের পরিসমাপ্তি ঘটে, যখন জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির সমর্থনে রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালনের অধিকারী হন।


ক্ষমতা গ্রহণের কদিন পরেই মুক্তিযুদ্ধ সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের নেতা অধ্যক্ষ আবদুল আহাদ চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে গেলে জননেত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করার এই ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তটি ঘোষণা করেন। আমি নিজেও একজন মুক্তিযোদ্ধা এবং ওই সময় বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস)-এর বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রেস টিমে কর্মরত ছিলাম। সিদ্ধান্তটি যখন ঘোষণা করা হয়, সেখানে আমিও উপস্থিত ছিলাম এবং যথারীতি সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে বাসসে সংবাদটি পরিবেশন করি। সিদ্ধান্তটি ভালো লাগলে এর অন্তর্নিহিত গভীর মর্ম উপলব্ধি করতে আমাকে অনেকদিন অপেক্ষা করতে হয়েছিল। তখন রাষ্ট্রক্ষমতায় কেয়ারটেকার গভর্নমেন্ট। আমাদের বাড়ি বরিশালের কোতোয়ালি থানাধীন কাশিপুরে। হঠাৎ গভীর রাতে খবর এলো, আমার মুক্তিযোদ্ধা ভাই মফিজুল ইসলাম ভূঁইয়া (যিনি সুরু ভূঁইয়া নামে পরিচিত) হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যুবরণ করেন। চোখের জলে, মুখের জলে একাকার হয়ে আমি প্রাইভেট কার নিয়ে ঢাকা থেকে কাশিপুরে পৌঁছলাম। পথেই দেখলাম আমাদের বাড়ির মাইলখানেক দূরে চৌহুতপুর মাদরাসা প্রাঙ্গণে ভাইয়ের নামাজে জানাজার আয়োজন চলছে। যথারীতি বরিশাল জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে একটি শোকবার্তা বহন করে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মহোদয় সেখানে উপস্থিত হলেন। কিন্তু গার্ড অব অনার প্রদান করার জন্য পুলিশ কন্টিনজেন তখনো পৌঁছেনি। অনেকক্ষণ অপেক্ষা করার পর সবাই বিক্ষুব্ধ হলেন এবং সূর্যাস্তের আগেই দাফন করতে হবে বলে সকলে জানাজা অনুষ্ঠানের তাগিদ দিতে লাগলেন। অগত্যা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মহোদয় ডিসি সাহেবের সই করা শোকবার্তাটি পড়ে শোনালেন, যেখানে মহান মুক্তিযুদ্ধে আমার অকুতোভয় নানাভাইয়ের (আমার মেজোভাইকে আমরা নানা বলে ডাকতাম) গুরুত্বপূর্ণ অবদানের কথা তুলে ধরে জাতির পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জানানো হলো।
জানাজা শেষে আমরা চৌহুতপুর থেকে আমাদের কাশিপুরে পারিবারিক গোরস্তানের দিকে লাশ নিয়ে যাত্রা শুরু করলাম। একপর্যায়ে তার জন্য প্রস্তুত করা কবরের পাশে লাশ নামানো হলো। হঠাৎ দূর থেকে দেখলাম হুইসল বাজাতে বাজাতে একদল পুলিশ এসে উপস্থিত হলেন। বিলম্বের জন্য ক্ষমাপ্রার্থনা করলেন এবং গাড়ি জোগাড়ে সময় লেগেছিল বলেই তাদের একটু দেরি হয়েছে বলে আমাদের জানালেন। শুরু করলেন রাষ্ট্রীয় মর্যাদা প্রদানের পালা। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রিয় সুরু ভাইকে যখন কবরে হিমশীতল কোলে সমাধিস্থ করতে যাচ্ছিল, সেই শোকাবহ পরিবেশ হঠাৎ বিউগলের করুণ সুর মূর্ছনায় বাঙ্ময় হয়ে উঠল। পড়ন্ত সূর্যের শেষ রশ্মি সদ্য খোঁড়া কবরের চারপাশের বাঁশবনে এসে আছারি-পাছারি খাচ্ছিল। সেই মুহূর্তে পুলিশের বিউগলের ‘রিকোইমের’ (মৃত ব্যক্তির উদ্দেশে বাজানো করুণ সংগীত) মূর্ছনায় পল্লিপ্রান্তর এক স্বর্গীয় সুধায় সিক্ত হয়ে উঠল। সকল শোকাহত আত্মীয়স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষী ও উপস্থিত ব্যথাতুর মানুষের মনে পুলিশের সশস্ত্র অভিবাদনের ছন্দায়িত শব্দ এক চমৎকার সান্ত¡নার পরশ বুলিয়ে দিল। সেই মুহূর্তে আমার মনে হলো মৃত্যু সত্যিই কখনো কখনো সুন্দর ও মায়াবী হতে পারে। মৃত্যু কখনো কখনো সার্থক ও মধুময় হতে পারে। আগেই উল্লেখ করেছি-এই সিদ্ধান্তটি যখন হয়, আমি তখন সেখানে উপস্থিত ছিলাম এবং যথারীতি সংবাদটি বাসসে পরিবেশন করেছি। কিন্তু এর গভীরতা তখন উপলব্ধি করতে পারিনি। নিজ ভাইয়ের মৃত্যুতে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন হওয়ার পর আমি অনুভব করতে পেরেছিলাম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এটা কোনো সাদামাটা সিদ্ধান্ত ছিল না। এ ছিল একটি অনন্য সিদ্ধান্ত, ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত।

লেখক:-জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সহ-সভাপতি ও বাংলাদেশ সাংবাদিক অধিকার ফারামের সভাপতি এবং বাসসের সাবেক প্রধান সম্পাদক ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক,বরিশাল বিভাগ সাংবাদিক সমিতির সভাপতি এবেং Lastnewsbd.com এর উপদেষ্টা সম্পাদক।

*প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। লাস্টনিউজবিডি‌’র সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে মিল নেই। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য লাস্টনিউজবিডি‌ কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।

Print Friendly, PDF & Email

Comments are closed

youtube
app
পেপার কর্ণার
Lastnewsbd.com
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন >

অ্যালার্জি আছে এমন কারো করোনা টিকা নেওয়া উচিত নয় বলেছেন ব্রিটেনের নিয়ন্ত্রক সংস্থা এমএইচআরএ। আপনি কি এর সাথে একমত?

View Results

Loading ... Loading ...
আর্কাইভ
মতামত
মর্কটদের থামান, ওরা যেন মাথায় ওঠে না বসে
।।মনজুরুল আহসান বুলবুল ।। ১. শিরোনামটি নিয়...
বিস্তারিত
সাক্ষাৎকার
সফল হওয়ার গল্প, সাফল্যের পথ
।।আলীমুজ্জামান হারুন।। ১৯৮১ সালে যখন নিটল মটরসের য...
বিস্তারিত
জেলার খবর
Rangpur

    রংপুরের খবর

  • ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে স্কুলশিক্ষক গ্রেপ্তার
  • নওগাঁয় ট্রাক্টরের ধাক্কায় দুই ভাই নিহত
  • ‘সিন্ডিকেটরা গরীবের পেটে লাথি মারছে’

অ্যালার্জি আছে এমন কারো করোনা টিকা নেওয়া উচিত নয় বলেছেন ব্রিটেনের নিয়ন্ত্রক সংস্থা এমএইচআরএ। আপনি কি এর সাথে একমত?

  • হ্যা (61%, ৮১ Votes)
  • না (24%, ৩২ Votes)
  • মতামত নাই (15%, ১৯ Votes)

Total Voters: ১৩২

Start Date: ডিসেম্বর ৯, ২০২০ @ ৮:২১ অপরাহ্ন
End Date: No Expiry

যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. অ্যান্থনি ফাউচি মনে করেন আসন্ন ‘বড় দিন’ মহামারির জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। আপনি কি তার এই মন্তব্যকে যথাযোগ্য মনে করেন?

  • হ্যা (0%, ০ Votes)
  • না (0%, ০ Votes)
  • মতামত নাই (100%, ০ Votes)

Total Voters:

Start Date: ডিসেম্বর ৮, ২০২০ @ ২:০৩ অপরাহ্ন
End Date: No Expiry

জার্মানির বার্লিন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় দেখা গেছে, নাক দিয়েও মস্তিস্কে করোনা হানা দেয়। আপনি কি মনে করেন মস্তিস্কে করোনার আক্রমণ রক্ষার্থে মাস্ক ই যথেষ্ট?

  • হ্যা (75%, ৬ Votes)
  • না (13%, ১ Votes)
  • মতামত নাই (12%, ১ Votes)

Total Voters:

Start Date: ডিসেম্বর ২, ২০২০ @ ৩:১৯ অপরাহ্ন
End Date: No Expiry

মডার্নার, ফাইজারের করোনা ভাইরাসের টিকার মধ্যে মডার্নার টিকার উপর কি আপনার আস্থা বেশি ?

  • মতামত নাই (100%, ১ Votes)
  • হ্যা (0%, ০ Votes)
  • না (0%, ০ Votes)

Total Voters:

Start Date: ডিসেম্বর ২, ২০২০ @ ৯:১৯ পূর্বাহ্ন
End Date: No Expiry

মার্কিন টিকা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান মডার্নার দাবি করেছেন অত্যধিক ঝুঁকিপূর্ণ রোগীর ওপর এ টিকা ১০০ শতাংশ কাজ করেছে। আপনি কি শতভাগ ফলপ্রসু মনে করেন?

  • হ্যা (100%, ১ Votes)
  • না (0%, ০ Votes)
  • মতামত নাই (0%, ০ Votes)

Total Voters:

Start Date: ডিসেম্বর ১, ২০২০ @ ১২:৫১ অপরাহ্ন
End Date: No Expiry

 Page ১ of ২  ১  ২  »