প্রকৌশলী মনোয়ারকে শোকজ: সরকারি তদন্তে কেঁচো খুড়তে সাপ-১
Wednesday, 23rd March , 2016, 05:50 pm,BDST
Print Friendly, PDF & Email

প্রকৌশলী মনোয়ারকে শোকজ: সরকারি তদন্তে কেঁচো খুড়তে সাপ-১



আলীমুজ্জামান হারুন, ২৩ মার্চ ঢাকা: বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানির কূয়াকাটায় কেবল ল্যান্ডিং স্টেশনের সীমানা প্রাচীর ধসে পড়ার তদন্ত করতে গিয়ে কেঁচো খুড়তে সাপ বেড়িয়ে পড়েছে। সরকারি তদন্তে এ ঘটনায় বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনোয়ার হোসেনকে দায়ী করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়   ইতিমধ্যেই প্রকল্পের,প্রায় ৭শ কোটি টাকার মধ্যে প্রায় ৪শ কোটি টাকা ব্যয় করা হয়েছে । প্রকল্পের পিডিকে বাইপাস করে সরাসরি এমডির হাত দিয়ে এই টাকার সিংহভাগ খরচ হয়েছে। সদ্য প্রত্যাহার করা পিডি জাহাঙ্গীর হেসেন তদন্ত কমিটিকে এবং তাকে করা শোকজের জবাবে এ কথা জানিয়েছেন।

ডাক, টেলিযোগাযোগ বিভাগ থেকে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে ওঠে এসেছে নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য। অবশ্য ইতোমধ্যেই মন্ত্রণালয় থেকে এমডিকে শোকজ করা হয়েছে। তিনি যে জবাব দিয়েছেন তা মন্ত্রণালয়ের কাছে গ্রহনযোগ্য হয়নি। সরাসরি ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী এ্যাড. তারানা হালিম এমপি‘র  নির্দেশে এই ঘটনা পুন:তদন্ত করা হয়।

বর্তমানে বিদেশে অবস্থানরত ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব দেশে ফিরে এলেই প্রতিবেদনের আলোকে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে।

প্রসঙ্গত, পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়ার আমখোলাপাড়ায় সাড়ে ৬ শ কোটি টাকা ব্যয়ে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সাবমেরিন কেবল ল্যান্ডিং স্টেশন নির্মাণ করা হচ্ছে। গত বছরের অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে প্রায় তিন শ’ ফুট সীমানা প্রাচীর ধসে পড়ে।

মূল ভবন, প্রধান ফটক ও শোভাবর্ধনের কাজ করে ওই বছরের নবেম্বরে সাবমেরিন কোম্পানির কাছে হস্তান্তরের কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই প্রাচীর ধসে পড়ায় সামগ্রিকভাবে কাজের গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়। তখনই অভিযোগ ওঠে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কে. কে. এন্টারপ্রাইজ প্রকল্পের মূল ভবনসহ অন্যান্য কাজে নিম্মামানের ইট, বালু, পাথর, সিমেন্ট, রড ব্যবহার করেছে। তবে রহস্যজনক কারণে বিএসসিসিএল সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বিষয়টি এড়িয়ে গেছে। উল্টো নিয়ম বহির্ভূতভাবেই বিএসসিসিএল ব্যবস্থাপনা পরিচালক ঠিকাদারকে সন্তোষজনকভাবে কার্য সম্পাদনের সনদ প্রদান করেন।

এমনকি মন্ত্রণালয়কে পাশ কাটিয়ে তড়িঘড়ি করে বুয়েটকে দিয়ে তদন্ত করিয়ে বিষয়টি ধামাচাপার কৌশল নেয়। মন্ত্রণালয়ের তদন্তে কেঁচো খুঁড়তে সাপ বেরিয়ে আসার মতো পুরো প্রকল্প নিয়ে অনিয়ম আর জালিয়াতির নানা চিত্র ওঠে এসেছে।
তদন্ত প্রতিবেদনের দায়-দায়িত্ব উপ-শিরোনামে বলা হয়, সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজ ২০১৪ সালের ২১ এপ্রিল শুরু হয়ে ওই বছরের ৩০ ডিসেম্বর সমাপ্ত হয়। তবে দেয়ালের ডিজাইন প্রস্তুতকালে পাইলিং এ পাইলিং ক্যাপTransverse Load/Horizontal Load বহনক্ষম ব্যবস্থা ডিজাইনে অন্তর্ভূক্ত না থাকা সীমানা প্রাচীরটি ধসে পড়ার প্রধান কারণ।

কিন্তু বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক চঅঞ (PAT (Provisional Acceptance Test) ) কমিটি এবংFAT (Final Acceptance Test) কমিটি গঠনপূর্বক উক্ত কমিটি কর্তৃক সীমানা প্রাচীরটি নির্মাণের সঠিকতা নির্ণয় তথা কার্য সম্পাদন সনদ (Work Completion Certificate) সংগ্রহ না করে শুধুমাত্র পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের মতামতের ভিত্তিতে নির্মান কাজটি সময়মত ও সন্তোষজনকভাবে সম্পন্ন হয়েছে মর্মে বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিজেই ঠিকাদারকে কার্য সম্পাদন সনদ প্রদান করেন।অথচ, পিপিআর, ২০০৮ এর বিধি ২৯ এর উপবিধি ৩০ মোতাবেক এরুপ সনদ প্রদান করবেন প্রকল্প ব্যবস্থাপক/প্রকল্প পরিচালক। PAT (Provisional Acceptance Test) কমিটি এবং FAT (Final Acceptance Test) সম্পাদন করা হলে দেয়ালের ডিজাইন সংক্রান্ত ত্রুটি হয়তো ধরা পড়তো। স্বচ্ছতার স্বার্থে উপরে বর্ণিত যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণপূর্বক কার্য সম্পাদন সনদ প্রদান করা হলে কাজটির বিল প্রদানের স্বচ্ছতা প্রদর্শিত হতো।

কিন্তু বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিজেই ঠিকাদারকে কার্য সম্পাদন সনদ প্রদান করে পিপিআর, ২০০৮ এর সংশ্লিষ্ট বিধি লংঘন করেছেন এবং এরূপ সনদ প্রদানের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা প্রদর্শন করেননি।

তাছাড়া বিএসসিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকল্প অফিস প্রকল্প এলাকার নিকটবর্তী কুয়াকাটা শহরে অথবা কলাপাড়া উপজেলা শহরে স্থাপন না করে প্রকল্প এলাকা হতে প্রায় ৭০ কিলোমিটার দূরে (এ দুরত্ব অতিক্রমকালে তিনটি ফেরী পারাপার হতে হয়) পটুয়াখালী শহরে প্রকল্প স্থাপন করে নির্মাণকাজ সুষ্ঠু, সময়মত তদারকীতে অসুবিধাজনক অবস্থার সৃষ্টি করা হয়। এর ফলে, সুষ্ঠু, সময়মত তদারকি বাধাগ্রস্ত হয়েছে এবং অফিসের জন্য বাড়ি ভাড়া বাবদ প্রয়োজনের অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করা হয়েছে।
মন্ত্রণালয়ের তদন্ত প্রতিবেদনে, বিধি লংঘন করে ঠিকাদারকে কার্য সম্পাদন সনদ প্রদান, সরকার কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্টের অপেক্ষা না করে বুয়েটকে দিয়ে আরেকটি সমান্তরাল তদন্তের কাজের দায়িত্ব প্রদান এবং এ বিষয়ে বুয়েটকে পৌনে দুই লাখ টাকা পরিশোধের জন্য বিএসসিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়।
কমিটির সুপারিশে আরো বলা হয়েছে, ত্রুটিপূর্ণ ডিজাইন প্রনয়ন, সঠিকভাবে নির্মাণকাজ তদারকি না করা; নির্মাণকাজ সার্বক্ষনিক তদারকির জন্য চুক্তি মোতাবেক বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার (সিভিল) নিযুক্ত না রাখা প্রভৃতি বিষয়ে চুক্তি লংঘনের দায়ে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এবং বিএসসিসিএল এর মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তির আলোকে বিএসসিসিএল কর্তৃক অবিলম্বে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক। এতে প্রাচীর ধসের কারণ বা আলামত অনুসন্ধানের সুযোগ বিনষ্ট করায় ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়।
তদন্ত কমিটির সাতদফা সুপারিশে উল্লেখ করা হয়েছে,
১. ত্রুটিপূর্ণ ডিজাইন প্রনয়ন, সঠিকভাবে নির্মাণকাজ তদারকী না করা; নির্মাণকাজ সার্বক্ষনিক তদারকীর জন্য চুক্তি মোতাবেক বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার (সিভিল) নিযুক্ত না রাখা প্রভৃতি বিষয়ে চুক্তি লংঘনের দায়ে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এবং বিএসসিসিএল এর মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তির আলোকে বিএসসিসিএল কর্তৃক অবিলম্বে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক।

২. কর্তৃপক্ষের বিনা অনুমতিতে নকশাঁ বহির্ভুতভাবে মাটি ভরাট, স্থাপনা ((Land Shed) নির্মাণ, হেলে পরা সীমানা প্রাচীর পুণঃনির্মাণের মাধ্যমে করে প্রাচীর ধসের কারণ/আলামত অনুসন্ধানের সুযোগ বিনষ্ট করায় ঠিকাদারের বিরুদ্ধে চুক্তির আওতায় বিএসসিসিএল কর্তৃপকযথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক।

৩. লিখিতভাবে সতর্ক করা সত্ত্বেও প্রকল্পের প্রাক্তন প্রকল্প পরিচালক প্রাচীর নির্মাণ কালে পরামর্শকে প্রতিষ্ঠান এবং ঠিকাদারের কার্যাবলী তদারকীর দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন না করায় তাঁর বিরুদ্ধ বিধি মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে।

৪. বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিজেই ঠিকাদারকে ব্যর্থ সম্পাদন সনদ প্রদান করেন। সীমানা প্রাচীর নির্মাণকাজের গুণগতমান; এটি নির্মাণ নকশাঁ অনুযায়ী নির্মীত হয়েছে কিনা সে বিষয়ে যাথাযথ প্রক্রিয়ায় পরীক্ষা করে নিশ্চিত না হয়ে শুধুমাত্র পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের পত্রের ভিত্তিতেই ঠিকাদারকে ঠিকাদার সময়মত ও সন্তোষজনকভাবে নির্মাণকাজের সম্পন্ন করেছেন, মর্মে ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিজেই ঠিকাদারকে অস্বচ্ছভাবে কার্য সম্পাদন সনদ” প্রদান করেন। প্রকল্প পরিচালকের পরিবর্তে বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ঠিকাদারকে কার্য সম্পাদন সনদ প্রদান করে পিপিআর, ২০০৮এর সংশ্লিষ্ট বিধি লংঘন করায় এ বিষয়ে বিএসসিসিএল পরিচালনা বোর্ড কর্তৃক যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে।
৫. সরকার কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্টের অপেক্ষা না করে বিএসসিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কর্তৃক বুয়েটকে দিয়ে আরেকটি সমান্তরাল তদন্তের কাজের দায়িত্ব প্রদান এবং এ জন্য বুয়েটকে সংস্থায় প্রায় পৌনে দু লক্ষ টাকা প্রদানের বিষয়ে ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বিএসসিসিএল এর নিকট বিএসসিসিএলের পরিচালনা বোর্ড প্রয়োজনীয় জবাবদিহীতার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে।
৬. যথাযথ ডিজাইন প্রণয়ন করে সম্পূর্ণ সীমানা প্রাচীরটিকে সুরক্ষার লক্ষ্যে অবিলম্বে যাথাযথ প্রয়োজনীয় কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য বিএসসিসিএল কর্তৃক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান, ঠিকাদারকে নির্দেশ দেয়া যেতে পারে।

৭. বিএসসিসিএলএর এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কর্তৃক সরকারী বিধি-বিধান অনুসারে প্রকল্প পরিচালকের নিকট আর্থিক ও প্রকল্প বাস্তবায়ন সংশ্লিষ্ট সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা Delegate করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক।

সংস্থার উধতন কর্মকর্তাগণের আন্তঃসম্পর্ক উন্নততর করার ব্যবস্থা গ্রহণ আবশ্যক।

জনস্বার্থে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনটি তুলে ধরা হলো——-

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়
ডাক ও টেলিযোগযোগ বিভাগ
বিষয়ঃ কুয়াটাস্থ ঝঊঅ-গঊ-ডঊ-৫ ল্যান্ডিং স্টেশনের সীমানা প্রচীরের একাংশ ধসে পড়ে যাওয়া বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন (পুনঃতদন্ত)।

তদন্ত কমিটি মতামতঃ
ক) ধসে পড়ার কারণ বিষয়কঃ
১) দেয়ালের ডিজাইন প্রস্তুতকালে ‘পাইলিং ক্যাপ’ ঞৎধহংাবৎংব খড়ধফ/ঐড়ৎরুড়হঃধষ খড়ধফ বহনক্ষম ব্যবস্থা ডিজাইনে অন্তর্ভুক্ত না থাকা।
২) লেবার সেড তৈরী করার জন্য প্রাচীরের ২৪০’-০” অংশ বরাবর ভিতরের দিকে ৭’-০” উচ্চতা পর্যন্ত মাটি ভরাট করার উপর দিয়ে প্রাচীরে গায়ে আনুভুমিভাবে প্রবল চাপের সৃষ্টি করে এবং এক পর্যায়ে পুরো প্রাচীর অক্ষত অবস্থায় থেকে তা গোড়া (ঋড়ঁহফধঃরড়হ এৎধফব ইবধস) হতে ধসে পশ্চিম পার্শ্বে একসারে পড়ে যায়।
৩) সীমানা প্রাচীর নির্মাণের দরপত্রে একই সাথে ডধষশ ডধু নির্মাণের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত হলে উক্ত প্রাচীরের ঞৎধহংাবৎংব খড়ধফ ৎবংরংঃ করার কাজ করতো , যা প্রকারন্তরে ল্যান্ডিং স্টেশনটির মত একটি গুরুত্বপূর্ণ কবু চড়রহঃ ওহংঃধষষধঃরড়হ(কচও) এর জন্য নিরাপত্তা বিধান নিশ্চিতকরণেও সহায়ক হতো বলে প্রতীয়মান হয়। কিন্তু একই সাথে ডধষশ ডধু নির্মাণ কাজটি সম্পন্ন করা হয়নি। এ বিষয়টি অনুধাবনে বিএসসিসিএল নিযুক্ত পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ব্যর্থ হয়েছেন।
৪) সীমানা প্রাচীরের ডববঢ় ঐড়ষব মাটির ডধঃবৎ ঝববঢ়ধমব পথ হিসেবে কাজ করে যায় মাধ্যমে অধিক পরিমাণ পানি নিষ্কাষণ সময়সাপেক্ষ। এ ক্ষেত্রে অত্যধিক পানি দ্রুত সময়ে নিষ্কাষনের জন্য একই সাথে ধিঃবৎ উৎধরহধমব ঝুংঃবস ডিজাইনে অন্তর্ভুক্ত করা অত্যন্ত প্রয়োজন ছিল, যা দৃশ্যমান হয়নি। কিন্তু পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এতে ব্যর্থ হয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়নকারী কর্তৃপক্ষও বিষয়টি অনুধাবনে ব্যর্থ হয়েছেন।
(খ) দায়-দায়িত্বঃ

১) বিএসসিসিএল হতে প্রাপ্ত কাজগপত্রাদি পরীক্ষান্তে দেখা যায়, সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজ ২১-০৪-২০১৪ তারিখে শুরু হয়ে ৩০-১২-২০১৪ তারিখে সমাপ্ত হয়। পূর্বেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, দেয়ালের ডিজাইন প্রস্তুতকালে পাইলিং এ পাইলিং ক্যাপ ঞৎধহংাবৎংব খড়ধফ/ঐড়ৎরুড়হঃধষ খড়ধফ বহনক্ষম ব্যবস্থা ডিজাইনে অন্তর্ভূক্ত না থাকা সীমানা প্রাচীরটি ধসে পড়ার প্রধান কারণ। কিন্তু বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক চঅঞ (চৎড়ারংরড়হধষ অপপবঢ়ঃধহপব ঞবংঃ) কমিটি এবং ঋঅঞ (ঋরহধষ অপপবঢ়ঃধহপব ঞবংঃ) কমিটি গঠনপূর্বক উক্ত কমিটি কর্তৃক সীমানা প্রাচীরটি নির্মাণের সঠিকতা নির্ণয় তথা কার্য সম্পাদন সনদ (ডড়ৎশ ঈড়সঢ়ষবঃরড়হ ঈবৎঃরভরপধঃব) সংগ্রহ না করে শুধুমাত্র পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের মতামতের ভিত্তিতে নির্মানকাজটি সময়মত ও সন্তোষজনকভাবে সম্পন্ন হয়েছে” মর্মে বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিজেই ঠিকাদারকে কার্য সম্পাদন সনদ প্রদান করেন। অথচ, পিপিআর, ২০০৮ এর বিধি ২৯ এর উপবিধি ৩০ মোতাবেক এরুপ সনদ প্রদান করবেন প্রকল্প ব্যবস্থাপক/প্রকল্প পরিচালক। চঅঞ (চৎড়ারংরড়হধষ অপপবঢ়ঃধহপব ঞবংঃ) কমিটি এবং ঋঅঞ (ঋরহধষ অপপবঢ়ঃধহপব ঞবংঃ) সম্পাদন করা হলে দেয়ালের ডিজাইন সংক্রান্ত ত্রুটি হয়তো ধরা পড়তো। স্বচ্ছতার স্বার্থে উপরে বর্ণিত যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণপূর্বক কার্য সম্পাদন সনদ প্রদান করা হলে কাজটির বিল প্রদানের স্বচ্ছতা প্রদর্শিত হতো। তাছাড়া, প্রকল্প পরিচালক পরিবর্তে বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক

নিজেই ঠিকাদারকে কার্য সম্পাদন সনদ প্রদান করে পিপিআর, ২০০৮ এর সংশ্লিষ্ট বিধি লংঘন করেছেন এবং এরূপ সনদ প্রদানের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা প্রদর্শন করেননি।

২) বিএসসিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কর্তৃক প্রকল্প অফিস প্রকল্প এলাকার নিকটবর্তী কুয়াকাটা শহরে অথবা কালাপাড়া উপজেলা শহরে স্থাপন না করে প্রকল্প এলাকা হতে প্রায় ৭০ কিলোমিটার দূরে (এ দুরত্ব অতিক্রমকালে তিনটি ফেরী পারাপার হতে হয়)পটুয়াখালী শহরে প্রকল্প অফিস স্থাপন করে নির্মাণকাজ সুষ্ঠু, সময়মত তদারকীতে অসুবিধাজনক অবস্থার সৃষ্টি করা হয়। এর ফলে, সুষ্ঠু, সময়মত তদারকী বাধাগ্রস্ত হয়েছে এবং অফিসের জন্য বাড়ি ভাড়া বাবদ প্রয়োজনের অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করা হয়েছে।

৩) প্রাচীর নির্মাণকালে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এবং ঠিকাদারের কার্যাবলী যথাযথভাবে তদারকীর করার সার্বিক দায়িত্ব ছিল প্রকল্প পরিচালক হিসেবে প্রাক্তন প্রকল্প পরিচালকের। কিন্তু প্রকল্প এলাকা ও প্রকল্প অফিস এর মধ্যে দূরত্ব যাতায়াত ব্যবস্থা প্রভৃতি অজুহাতে তিনি সে দায়িত্ব যাথাযথভাবে পালন করেননি বলে প্রতীয়মান হয়। তাছাড়া, যদিও ডধষশ ডধু নির্মাণ কাজটি বন্ধ করার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন, তা স্বত্ত্বেও প্রাক্তন প্রকল্প পরিচালক প্রজ্ঞা ব্যবহার করে ডধষশ ডধু নির্মাণ সম্পন্ন করিয়ে দিতে ব্যর্থ হয়েছেন।

৪) ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ কর্তৃক গঠিত কমিটির সমান্তরালে অনুরূপভাবে কাজে ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বিএসসিসিএল কর্তৃক বুয়েট এর মাধ্যমে আরো একটি কমিটি গঠন এবং প্রায় ২ (দুই) লক্ষ টাকা প্রাথমিক ব্যয় করে ব্যবস্থাপনা পরিচালক তার স্বেচ্ছাচারিতার পরিচয় দিয়েছেন এবং আর্থিক অ-ব্যবস্থাপনার স্বাক্ষর রেখেছেন।

৫) পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তির (সংলগ্নি-১৮) ধারা ১.৮ (বি) মোতাবেক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ডিজাইন প্রস্ততকালে অবকাঠামোর ঋড়ড়ঃরহমং, মৎধফব নবধসং, ঢ়রষবং ইত্যাদির যাথাযথ পরিমাপ (ঝরুব) এবং উবধফ ষড়ধফ, খরাব ষড়ধফ, ডরহফ ষড়ধফ, ঈুপষড়হব প্রভৃতি বিবেচনায় নিয়ে ঈৎরঃরপধষ খড়ধফরহম ঈড়হফরঃরড়হং যথাযথভাবে বিবেচনায় না নিয়ে প্রাচীরের ত্রুটিপূর্ণ ডিজাইন প্রস্তুত করা হয়েছে বলে তদন্ত কমিটির নিকট প্রতীয়মান হয়েছে।

৬) নকশা/ডিজাইন বহির্ভুতভাবে ঠিকাদার কর্তৃক ৭ ফুট উচ্চতা পর্যন্ত মাটি ভরাটের মাধ্যমে লেবার সেড নির্মাণের বিষয়টি অবলোকন/অবহিত হওয়ার পর সেগুলি অপসারণে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক কোন ব্যবস্তা গ্রহণ করা হয়নি কিংবা বিষয়গুলো বিএসসিসিএল কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়নি। চক্তি অনুযায়ী নির্মাণকাজের সার্বক্ষনিক (২৪ ঘণ্টা) তদারকীর দায়িত্ব পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের উপর নস্ত্য। এ লক্ষ্যে চুক্তির ধারা ১.২ মোতাবেক তদারকীর জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সার্বক্ষনিক বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার (সিভিল) নিযুক্ত রাখার কথা থাকলেও তা করা হয়নি। এ ক্ষেত্রেও পরামর্শক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক চুক্তি (ধারা ১.৪.১২,১.৪.১৩,১.৮এর ই এবং ১.৮এর এফ) লংঘন করা হয়েছে।
৭) নিয়মমাফিক প্রাচীন নির্মানকালে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এবং ঠিকাদারের কার্যাবলী যথাযথভাবে তদারকীর করার সার্বিক দায়িত্ব ছিল প্রকল্প পরিচালক হিসেবে প্রাক্তন প্রকল্প পরিচালকের। কিন্তু তিনি সে দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করেননি। শুধুমাত্র অধীনস্থদের উপর নির্ভর না করে চৎড়লবপঃ ড়িৎশ ঝঁঢ়বৎারংরড়হ বৃদ্ধি করার এবং অন্যান্য অনিয়মের বিষয়ে বিএসসিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকে সতর্কও করেছেন।

৮। নকশা বহির্ভুতভাবে মাটি ভরাট এবং লেবার সেড নির্মাণ করে ঠিকাদার চুক্তি (সংলগ্নি-১৯) লংঘন করেছেন। ঠিকাদার চুক্তির উবভবপঃ খরধনরষরঃু চবৎরড়ফ এর আওতায় প্রাচীরের ধসে পড়া অংশ নিজ অর্থায়নে দ্রুততার সাথে পুনঃ নির্মাণ করলেও ঠিকাদার এ কাজে বিএসিসিএল কতৃপক্ষের অনুমতি গ্রহণ করেননি। দ্রুততার সাথে পুনঃ নির্মাণ করার ফলে প্রাচীরটি ধসে পড়ার পেছনে কারিগরি কোন ত্রুটি ছিল কি না তদন্তক্রমে তা অনুসন্ধানের সুযোগ বিনষ্ট করেছেন। তাছাড়া, পুনঃনির্মীত সীমানা প্রাচীরের গুণগতমান সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

৯) বর্তমান প্রকল্প পরিচলাক জনাব পারভেজ মনন আশরাফ ঠিকাদার কর্তৃক ধসে পড়া সীমানা প্রাচীর পুনঃনির্মাণকালে আলামত বিনষ্ট করার বিষয়ে কোন বাধা বা পদক্ষেপ গ্রহণ করা, এমনকি ডিজাইনে কোনরুপ পরিবর্তনের বিষয়টিও আমলে আনেন নি। এর ফলে তিনি তাঁর দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন।

১০। সীমানা প্রাচীর এবং ডধষশ ডধু নির্মাণ কাজের দরপত্র একই সাথে প্রক্রিয়াকরন করা হলে সম্মিলিত নির্মাণের মাধ্যমে ল্যান্ডিং স্টেশনের মত দেশের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কবু চড়রহঃ ওহংঃধষষধঃরড়হ(কচও) এর নিরাপত্তা বিধান নিশ্চিতকরণের বিষয়টি অনুধাবনে বিএসসিসিএল নিযুক্ত পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এবং পাশাপাশি বিএসসিসিএল কর্তৃপক্ষ তথা ব্যবস্থাপনা পরিচালক অদুরদর্শিতা ও অযোগ্যতার পরিচয় প্রদর্শন করেছেন।

সুপারিশঃ
৯.১. ত্রুটিপূর্ণ ডিজাইন প্রনয়ন, সঠিকভাবে নির্মাণকাজ তদারকী না করা; নির্মাণকাজ সার্বক্ষনিক তদারকীর জন্য চুক্তি মোতাবেক বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার (সিভিল) নিযুক্ত না রাখা প্রভৃতি বিষয়ে চুক্তি লংঘনের দায়ে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এবং বিএসসিসিএল এর মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তির আলোকে বিএসসিসিএল কর্তৃক অবিলম্বে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক।

৯.২. কর্তৃপক্ষের বিনা অনুমতিতে নকশাঁ বহির্ভুতভাবে মাটি ভরাট, স্থাপনা (খধহফ ঝযবফ) নির্মাণ, হেলে পরা সীমানা প্রাচীর পুণঃনির্মাণের মাধ্যমে করে প্রাচীর ধসের কারণ/আলামত অনুসন্ধানের সুযোগ বিনষ্ট করায় ঠিকাদারের বিরুদ্ধে চুক্তির আওতায় বিএসসিসিএল কর্তৃপকযথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক।

৯.৩. লিখিতভাবে সতর্ক করা সত্ত্বেও প্রকল্পের প্রাক্তন প্রকল্প পরিচালক প্রাচীর নির্মাণ কালে পরামর্শকে প্রতিষ্ঠান এবং ঠিকাদারের কার্যাবলী তদারকীর দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন না করায় তাঁর বিরুদ্ধ বিধি মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে।

৯.৪. বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিজেই ঠিকাদারকে ব্যর্থ সম্পাদন সনদ প্রদান করেন। সীমানা প্রাচীর নির্মাণকাজের গুণগতমান; এটি নির্মাণ নকশাঁ অনুযায়ী নির্মীত হয়েছে কিনা সে বিষয়ে যাথাযথ প্রক্রিয়ায় পরীক্ষা করে নিশ্চিত না হয়ে শুধুমাত্র পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের পত্রের ভিত্তিতেই ঠিকাদারকে ঠিকাদার সময়মত ও সন্তোষজনকভাবে নির্মাণকাজের সম্পন্ন করেছেন, মর্মে ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিজেই ঠিকাদারকে অস্বচ্ছভাবে কার্য সম্পাদন সনদ” প্রদান করেন। প্রকল্প পরিচালকের পরিবর্তে বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ঠিকাদারকে কার্য সম্পাদন সনদ প্রদান করে পিপিআর, ২০০৮এর সংশ্লিষ্ট বিধি লংঘন করায় এ বিষয়ে বিএসসিসিএল পরিচালনা বোর্ড কর্তৃক যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে।
৯.৫ সরকার কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্টের অপেক্ষা না করে বিএসসিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কর্তৃক বুয়েটকে দিয়ে আরেকটি সমান্তরাল তদন্তের কাজের দায়িত্ব প্রদান এবং এ জন্য বুয়েটকে সংস্থায় প্রায় পৌনে দু লক্ষ টাকা প্রদানের বিষয়ে ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বিএসসিসিএল এর নিকট বিএসসিসিএলের পরিচালনা বোর্ড প্রয়োজনীয় জবাবদিহীতার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে।
৯.৬ যথাযথ ডিজাইন প্রণয়ন করে সম্পূর্ণ সীমানা প্রাচীরটিকে সুরক্ষার লক্ষ্যে অবিলম্বে যাথাযথ প্রয়োজনীয় কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য বিএসসিসিএল কর্তৃক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান, ঠিকাদারকে নির্দেশ দেয়া যেতে পারে।

৯.৭. বিএসসিসিএলএর এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কর্তৃক সরকারী বিধি-বিধান অনুসারে প্রকল্প পরিচালকের নিকট আর্থিক ও প্রকল্প বাস্তবায়ন সংশ্লিষ্ট সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা উবষবমধঃব করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক। সংস্থার উধতন কর্মকর্তাগণের আন্তঃসম্পর্ক উন্নততর করার ব্যবস্থা গ্রহণ আবশ্যক।

submaren-investagation—– IMG_0001 IMG_0002

Print Friendly, PDF & Email

মতামত দিন

মতামত দিন

পেপার কর্ণার
Lastnewsbd.com
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন >

করোনার বুলেটিন না প্রকাশের সাথে আপনি কি একমত ?

ফলাফল দেখুন

Loading ... Loading ...
আর্কাইভ
মতামত
ধর্ষণ কমাতে মানসিকতার পরিবর্তন কাম্য
চাচার কাছেই তো ভাতিজী নিরাপদ না আজ! আঁৎকে উঠলেন ন...
বিস্তারিত
সাক্ষাৎকার
সফল হওয়ার গল্প, সাফল্যের পথ
।।আলীমুজ্জামান হারুন।। ১৯৮১ সালে যখন নিটল মটরসের য...
বিস্তারিত
জেলার খবর
Rangpur

    রংপুরের খবর

  • স্কুলছাত্রীকে ‘ধর্ষণ’, অতঃপর ৯৯৯ কল দিলেন ধর্ষিতা নিজেই
  • বন্ধুর সহযোগিতায় ধর্ষণ, আটক ২
  • দুই সন্তানকে নিয়ে মায়ের আত্মহত্যার কারণ

করোনার বুলেটিন না প্রকাশের সাথে আপনি কি একমত ?

  • মতামত নাই (11%, ১০ Votes)
  • হ্যা (31%, ২৭ Votes)
  • না (58%, ৫১ Votes)

Total Voters: ৮৮

করেনার বুলেটিন না প্রকাশের সাথে আপনি কি একমত ?

  • মতামত নাই (0%, ০ Votes)
  • হ্যা (0%, ০ Votes)
  • না (100%, ০ Votes)

Total Voters:

ঈদ উদযাপনের চেয়ে বেঁচে থাকার লড়াইটা এই মুহূর্তে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। আপনি কি একমত ?

  • মতামত নাই (12%, ১৪ Votes)
  • না (16%, ১৯ Votes)
  • হ্যা (72%, ৮৬ Votes)

Total Voters: ১১৯

ত্রাণ নিয়ে সমালোচনা না করে হতদরিদ্রদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর, এই আহবানের সাথে কি আপনি একমত ?

  • মতামত নাই (4%, ২ Votes)
  • না (16%, ৮ Votes)
  • হ্যা (80%, ৪১ Votes)

Total Voters: ৫১

যাদের প্রচুর টাকা-পয়সা, ধন-দৌলতের অভাব নেই তারা কীভাবে আন্দোলন করবে? বিএনপির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদের। আপনি কি এই মন্তব্যের সাথে একমত ?

  • মতামত নাই (15%, ১০ Votes)
  • না (21%, ১৪ Votes)
  • হ্যা (64%, ৪৪ Votes)

Total Voters: ৬৮

বিএনপির কর্মীরা নেতাদের প্রতি আস্থা হারিয়েছেন,জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রবের বক্তব্যের সাথে আপনি কি একমত ?

  • না (21%, ৩ Votes)
  • মন্তব্য নেই (21%, ৩ Votes)
  • হ্যা (58%, ৮ Votes)

Total Voters: ১৪

অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে বিএসটিআই‌‌‍‍র এখন গতিশীল ফিরে এসেছে এই কথার সাথে কি আপনি একমত ?

  • হ্যা (14%, ১ Votes)
  • একমত না (29%, ২ Votes)
  • না (57%, ৪ Votes)

Total Voters:

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠ হবে বলে আপনি কি মনে করেন ?

  • মতামত নেই (13%, ৬ Votes)
  • না (43%, ২০ Votes)
  • হ্যা (44%, ২১ Votes)

Total Voters: ৪৭

দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শক্ত অবস্থান নিয়েছেন। এজন্য তার অনেক আত্মীয়-স্বজনকে গণভবনে ঢোকা বন্ধ করে দিয়েছেন। আপনি কি এই পদক্ষেপ সমর্থন করছেন?

  • মন্তব্য নাই (11%, ১১ Votes)
  • না (16%, ১৭ Votes)
  • হ্যা (73%, ৭৬ Votes)

Total Voters: ১০৪

১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, খাদ্যের মতো রাজনীতিতেও ভেজাল ঢুকে পড়েছে। আওয়ামী লীগ দীর্ঘদিন ক্ষমতায় তাই এখানেও কিছু ভেজাল প্রবেশ করেছে। আপনি কি এই মন্তব্যের সাথে একমত ?

  • মন্তব্য নাই (2%, ৩ Votes)
  • না (8%, ১২ Votes)
  • হ্যা (90%, ১২৮ Votes)

Total Voters: ১৪৩

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন বলেছেন, বিএনপি একটি বট গাছ, এ গাছ থেকে দু’একটি পাতা ঝড়ে পরলে বিএনপির কিছু যাবে আসবে না , এ মন্তব্যের সাথে কি আপনি একমত ?

  • মতামত নেই (7%, ৩ Votes)
  • না (29%, ১২ Votes)
  • হ্যা (64%, ২৭ Votes)

Total Voters: ৪২

অনেক এনজিও অসৎ উদ্দেশ্যে রোহিঙ্গাদের নিয়ে কাজ করছে বলে মন্তব্য করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। আপনি কি এই মন্তব্যের সাথে একমত ?

  • মতামত নাই (0%, ০ Votes)
  • না (19%, ৬ Votes)
  • হ্যা (81%, ২৫ Votes)

Total Voters: ৩১

ডাক্তারদের ফি বেধে দেয়ার সরকারের পরিকল্পনার সাথে আপনি কি একমত?

  • না (0%, ০ Votes)
  • মতামত নাই (6%, ২ Votes)
  • হ্যা (94%, ৩০ Votes)

Total Voters: ৩২

দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন গড়তে মন্ত্রীসভায় প্রধানমন্ত্রী যে চমক এনেছেন তাতে কি আপনি খুশি ?

  • মতামত নাই (15%, ৫ Votes)
  • না (24%, ৮ Votes)
  • হ্যা (61%, ২১ Votes)

Total Voters: ৩৪

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠ ,নিরপেক্ষ হয়েছে বলে আপনি মনে করেন ?

  • হা (0%, ০ Votes)
  • না (0%, ০ Votes)
  • মতামত নাই (100%, ০ Votes)

Total Voters:

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠ ,নিরপেক্ষ হয়েছে বলে আপনি মনে করেন ?

  • মন্তব্য নাই (9%, ২ Votes)
  • হ্যা (18%, ৪ Votes)
  • না (73%, ১৬ Votes)

Total Voters: ২২

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিরপেক্ষ হবে বলে আপনি মনে করেন ?

  • মতামত নাই (5%, ২ Votes)
  • হ্যা (34%, ১৫ Votes)
  • না (61%, ২৭ Votes)

Total Voters: ৪৪

একবার ভোট বর্জন করায় অনেক খেসারত দিতে হয়েছে মন্তব্য করে আর নির্বাচন বয়কটের আওয়াজ না তুলতে জোট নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেন, আপনি কি একমত ?

  • মতামত নাই (3%, ১ Votes)
  • না (6%, ২ Votes)
  • হা (91%, ৩২ Votes)

Total Voters: ৩৫

সংলাপ সফল হবে বলে আপনি মনে করেন ?

  • হা (13%, ২ Votes)
  • মতামত নাই (13%, ২ Votes)
  • না (74%, ১১ Votes)

Total Voters: ১৫

আপনি কি মনে করেন যে কোন পরিস্থিতিতে বিএনপি নির্বাচন করবে ?

  • মতামত নাই (7%, ৭ Votes)
  • না (23%, ২৩ Votes)
  • হ্যা (70%, ৭১ Votes)

Total Voters: ১০১

অাপনি কি কোটা সংস্কারের পক্ষে ?

  • মতামত নেই (3%, ১ Votes)
  • না (8%, ৩ Votes)
  • হ্যা (89%, ৩৩ Votes)

Total Voters: ৩৭

খালেদা জিয়ার মামলা লড়তে বিদেশি আইনজীবীর কোন প্রয়োজন নেই' বিএনপি নেতা আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেনের সাথে - আপনিও কি একমত ?

  • মতামত নাই (9%, ১ Votes)
  • না (27%, ৩ Votes)
  • হ্যা (64%, ৭ Votes)

Total Voters: ১১

আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে বিদেশিদের কোনো উপদেশ বা পরামর্শের প্রয়োজন নেই বলে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের মন্তব্য যৌক্তিক বলে মনে করেন কি?

  • মতামত নাই (7%, ১ Votes)
  • হ্যা (20%, ৩ Votes)
  • না (73%, ১১ Votes)

Total Voters: ১৫

এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব) অলি আহমাদ বলেন, এরশাদকে খুশি করতে বেগম জিয়াকে নাজিমউদ্দিন রোডের জেলখানায় নেয়া হয়েছে। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?

  • মতামত নাই (8%, ৫ Votes)
  • না (27%, ১৬ Votes)
  • হ্যা (65%, ৩৮ Votes)

Total Voters: ৫৯

আপনি কি মনে করেন আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহন করবে ?

  • না (13%, ৫৪ Votes)
  • হ্যা (87%, ৩৬২ Votes)

Total Voters: ৪১৬

আপনি কি মনে করেন বিএনপির‘র সহায়ক সরকারের রুপরেখা আদায় করা আন্দোলন ছাড়া সম্ভব ?

  • হ্যা (32%, ৪৫ Votes)
  • না (68%, ৯৫ Votes)

Total Voters: ১৪০

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের বিষয়টি সম্পূর্ণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপরে নির্ভরশীল, এ বিষয়ে অাপনার মন্তব্য কি ?

  • মন্তব্য নাই (7%, ২ Votes)
  • হ্যা (26%, ৭ Votes)
  • না (67%, ১৮ Votes)

Total Voters: ২৭

আপনি কি মনে করেন নির্ধারিত সময়ের আগে আগাম নির্বাচন হবে?

  • মন্তব্য নাই (7%, ১০ Votes)
  • হ্যা (31%, ৪৬ Votes)
  • না (62%, ৯১ Votes)

Total Voters: ১৪৭

হেফাজতকে বড় রাজনৈতিক দল বানানোর চেষ্টা চলছে বলে মন্তব্য করেছেন নাট্যব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার। আপনি কি তার সাথে একমত?

  • মতামত নাই (10%, ৩ Votes)
  • না (34%, ১০ Votes)
  • হ্যা (56%, ১৬ Votes)

Total Voters: ২৯

“আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিলে দেশে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা কমে যাবে ”সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সাথে কি অাপনি একমত ?

  • মতামত নাই (9%, ৩ Votes)
  • না (32%, ১১ Votes)
  • হ্যা (59%, ২০ Votes)

Total Voters: ৩৪

আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধুর নাম ব্যবহার করে যারা সংগঠনের নামে দোকান খুলে বসেছে, তাদের ধরে ধরে পুলিশে দিতে হবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের আপনার প্রতিক্রিয়া কি ?

  • মতামত নাই (7%, ৩ Votes)
  • না (10%, ৪ Votes)
  • হ্যা (83%, ৩৫ Votes)

Total Voters: ৪২

ড্রাইভাররা কি আইনের উর্ধে ?

  • মতামত নাই (2%, ১ Votes)
  • হ্যা (14%, ৭ Votes)
  • না (84%, ৪৩ Votes)

Total Voters: ৫১

সার্চ কমিটিতে রাজনৈতিক দলের কেউ নেই- ওবায়দুল কাদেরের এ বক্তব্য সমর্থন করেন কি?

  • মতামত নাই (5%, ৩ Votes)
  • হ্যা (31%, ১৭ Votes)
  • না (64%, ৩৫ Votes)

Total Voters: ৫৫