কবি রফিক আজাদকে শেষ বিদায়
Monday, 14th March , 2016, 03:34 pm,BDST
Print Friendly, PDF & Email

কবি রফিক আজাদকে শেষ বিদায়



লাস্টনিউজবিডি, ১৪ মার্চ, ঢাকা: শেষ বিদায়ে সর্বস্তরের মানুষের ভালবাসায় সিক্ত হলেন কবি রফিক আজাদ। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও বাংলা একাডেমিতে সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসায় শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় সিক্ত হন তিনি।

সকাল ১০টায় কবি রফিক আজাদের মরদেহ নিয়ে আসা হয় শহীদ মিনার পাদদেশে। সেখানে তার মরদেহ গ্রহণ করেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু ও জাতীয় কবিতা পরিষদের সভাপতি ড. মুহাম্মদ সামাদ। এরপর তার মরদেহ নিয়ে আসা হয় শহীদ মিনারের সামনে স্থাপিত শোক বেদীতে। নাগরিক শ্রদ্ধানুষ্ঠানের আয়োজন করেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট।

সকাল ১০টা ২০ মিনিটে মুক্তিযোদ্ধা এ কবিকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়। ঢাকা জেলা পরিষদের ম্যাজিস্ট্রেট তানভীর মোহাম্মদ আমিনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি চৌকস দল বিউগলের করুণ সুর বাজিয়ে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানান। সেই সঙ্গে তার মরদেহ জাতীয় পতাকায় আচ্ছাদিত করা হয় ও এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

ব্যক্তিগতভাবে কবি রফিক আজাদকে শ্রদ্ধা জানান সৈয়দ শামসুল হক, এমিরেটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান, এমিরেটাস অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী, শিল্পী হাশেম খান, মনিরুল ইসলাম, নিসার হোসেন, কথাশিল্পী রশীদ হায়দার, কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা, কবি নাসির আহমেদ, কামাল চৌধুরী, কাজী রোজী, চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব সৈয়দ সালাউদ্দিন জাকি, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার, নাসির উদ্দিন ইউসুফ, মাহফুজা খানম, মামুনূর রশীদ, শিল্পী রথিন্দ্রনাথ রায়, ফকির আলমগীর, আবু হাসান শাহরিয়ার, সাবেক ছাত্রনেতা শফী আহমেদ, শুভাশিষ সিংহ রায় প্রমুখ।

সাংগঠনিকভাবে শ্রদ্ধা জানায় আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি, ওয়ার্কার্স পার্টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ), দৈনিক সমকাল, ছাত্র মৈত্রী, সরকারি তিতুমীর কলেজ, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়, আওয়ামী শিল্পী গোষ্ঠী, গ্রাম থিয়েটার, সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠী, প্রান্তজনের সখা, যাত্রাশিল্পী উন্নয়ন পরিষদ, জাতীয় কবিতা পরিষদ, শিল্পিত, পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ, স্রোত আবৃত্তি সংসদ, বহ্নিশিখা, শ্রাবণ প্রকাশনী, পথনাটক পরিষদ, আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ, জাতীয় জাদুঘর, বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরাম, গীতিকবি পরিষদ, নৃত্যশিল্পী সংস্থা, উদীচী, কেন্দ্রীয় খেলাঘর আসর, গণসঙ্গীত সমন্বয় পরিষদ, ঋষিজ, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ।

তার স্ত্রী দিলারা হাফিজ বলেন, আমি ঋষিতূল্য মানুষের সঙ্গে বাস করেছি। আমি একজন অতি ক্ষুদ্রতম মানুষ। প্রতিনিয়ত আমি রফিকের কাছ থেকে মানুষ হওয়ার শিক্ষা নিয়েছি। দেশপ্রেম ও মানবিকবোধ ধারণ করেছি তার কাছ থেকে। তিনি দেশকে এতোটাই ভালোবাসতেন যে, সন্তানদের বলেছিলেন ‘তোদের প্রেমিকা থাকবে না, দেশই তোদের প্রেমিকা।’

ছেলে অভিন্ন আজাদ বলেন, পিতা হিসেবে তিনি আমাদেরকে দেশকে ভালোবাসতে শিখিয়েছেন। এ দেশের জন্যই কবিতার কলম রেখে, অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছিলেন। তার রক্ত বইছে আমাদের ধমনীতে। সারাজীবন বলেছেন, দেশটাকে দেখে রাখিস। সে শিক্ষা নিয়েই বাকিটা জীবন এগিয়ে যাব।

আরেক ছেলে ইয়াসির রাহুল বলেন, শিল্পের মাধ্যমে তিনি যে সমাজ গড়ার স্বপ্ন দেখেছেন, সেটা আমাদের মধ্যে অব্যাহত থাকুক- এটাই আমি চাই।

সৈয়দ শামসুল হক বলেন, কবির কখনও মৃত্যু নাই, কবিতারও মৃত্যু নেই। তারপরও ষাটের দশকের উজ্জ্বলতম কবি রফিক আজাদ ঝরে গেল। রয়ে যাবে তার কবিতা। তিনি নিজেকে কৃষক বলে দাবি করতেন, তাই তার কবিতায় মাটি, মানুষ, উদ্ভিদ ও জনজীবন নিবিড়ভাবে লগ্ন হয়েছে।

ড. আনিসুজ্জামান বলেন, তিনি আমাদের সময়ের অন্যতম উল্লেখযোগ্য একজন কবি। তার বিশেষত্ব এই যে, তিনি মুক্তিযুদ্ধ করেছেন। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার বিষয়ে তার উদ্বেগ ছিল। তার কবিতায়, ভাবনায় সে পরিচয় আমরা পেয়েছি। ব্যক্তিগতভাবে রফিক আমার ছাত্র ছিলো। আমার সামনে ওর চলে যাওয়া অনেক বেশি বেদনার।

ড. রফিকুল ইসলাম বলেন, বাংলা সাহিত্যের অন্যতম পুরোধা কবি। তার কাছে যা অন্যায় মনে হয়েছে তা তিনি লিখেছেন। সেজন্য তাকে নিগৃহীতও হতে হয়েছে। যে বাংলাদেশের জন্য আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছি, পরবর্তীকালেও সংগ্রাম করেছি; রফিক আজাদ সে সংগ্রামের লড়াকু সৈনিক ছিলেন, আজীবন।

রফিক আজাদের “জীবিত কবির চেয়ে মৃত কবি দামি” উদ্ধৃতি টেনে রামেন্দু মজুমদার বলেন, তিনি কেন এ কথাটি লিখেছিলেন তা জানি না। কিন্তু তিনি জীবিত থাকবেন তার কবিতার মধ্যদিয়ে। যতদিন বাংলা কবিতা থাকবে, ততদিন তার নাম শ্রদ্ধার সাথে উচ্চারিত হবে।

আবুল কাশেম ফজলুল হক বলেন, ষাটের দশকের কবিদের মধ্যে রফিক আজাদ শ্রেষ্ঠ। সবচেয়ে সক্রিয় ও অন্যতম কবি। জীবনানন্দ দাশের ধারায় নৈরাশ্যবাদী কবিতা লিখেছেন, উনসত্তরের গণঅভ্যূত্থান ও মুক্তিযুদ্ধ তার লেখার ধরণ বদলে দেয়। তখনই তার কবিতা জনগণের সংগ্রাম, জাতীয়তাবাদী চেতনা উঠে এসেছে।

নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু বলেন, তিনি তার কবিতা দিয়ে শিল্পী ও শিল্পকে প্রভাবিত করেছেন। তার মৃত্যুর পর আরও প্রবল হয়ে উঠবে আমাদের শিল্প ও সাহিত্যে।

হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, তার কবিতা পাঠের মধ্যদিয়ে আমরা কবিতা লেখা শিখেছি। কবিতাকে চিনেছি। রফিক আজাদকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য আজীবন মনে রাখবে।

আবেগঘন কণ্ঠে রশীদ হায়দার বলেন, আমি রফিকের মুখ দেখবো না। তার আড্ডাবাজ, হুল্লোড়ময় মুখটাই আমার স্মৃতিতে বেঁচে থাক।

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, স্বাধীনতার আগেই তিনি মুক্তি ও স্বাধীনতা নিয়ে ভেবেছেন, যা স্বাধীনতার পরেও অব্যাহত ছিল। তার কবিতায় তার দেশপ্রেম প্রতিফলিত হতো। তার দেহ চলে গেল, তবে লেখক-পাঠক-সাধারণ মানুষের হৃদয়ে থেকে যাবেন।

শহীদ মিনার থেকে তার মরদেহ পরে আনা হয় বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে। সেখানে তার দীর্ঘদিনের বন্ধু-সহকর্মী ও শুভানুধ্যায়ীরা ফুলেল শ্রদ্ধা জানান। বাংলা একাডেমির শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বাদ যোহর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদে তার জানাযা সম্পন্ন হয়। সেখানে থেকে মরদেহ নেওয়া হয় তার বাসায়। পরিবার ও প্রতিবেশীদের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়।

লাস্টনিউজবিডি, আরজে

Print Friendly, PDF & Email

You must be logged in to post a comment Login

পেপার কর্ণার
Lastnewsbd.com
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন >

আপনি কি মনে করেন বাসে আগুন দিয়ে কি সরকার পরিবর্তন করা যাবে ?

View Results

Loading ... Loading ...
আর্কাইভ
মতামত
যুবলীগের নতুন নেতৃত্বঃ পরশের পরশ ছোঁয়ায় জেগে উঠুক কোটি তরুণ
।।মানিক লাল ঘোষ।।"আমার চেষ্টা থাকবে যুব সমাজ যেনো...
বিস্তারিত
সাক্ষাৎকার
সফল হওয়ার গল্প, সাফল্যের পথ
।।আলীমুজ্জামান হারুন।। ১৯৮১ সালে যখন নিটল মটরসের য...
বিস্তারিত
জেলার খবর
Rangpur

    রংপুরের খবর

  • বিরল প্রজাতির শুকুন পাখি উদ্ধার
  • চিকিৎসা সামগ্রী চুরি, হাতেনাতে ধরা খেলেন হাসপাতালের কর্মচারী
  • রুহিয়া এলএসডিকে জমি দান করলেন এমপি রমেশ চন্দ্র

আপনি কি মনে করেন বাসে আগুন দিয়ে কি সরকার পরিবর্তন করা যাবে ?

  • না (67%, ১৪ Votes)
  • হ্যা (24%, ৫ Votes)
  • মতামত নাই (9%, ২ Votes)

Total Voters: ২১

Start Date: নভেম্বর ১৩, ২০২০ @ ২:৫৪ অপরাহ্ন
End Date: No Expiry

How Is My Site?

  • Good (0%, ০ Votes)
  • Excellent (0%, ০ Votes)
  • Bad (0%, ০ Votes)
  • Can Be Improved (0%, ০ Votes)
  • No Comments (100%, ০ Votes)

Total Voters:

Start Date: নভেম্বর ১৩, ২০২০ @ ২:৫৪ অপরাহ্ন
End Date: No Expiry