বাজেটে মুঠোফোন গ্রাহক স্বার্থ উপেক্ষিত
Tuesday, 6th June , 2017, 04:48 pm,BDST
Print Friendly, PDF & Email

বাজেটে মুঠোফোন গ্রাহক স্বার্থ উপেক্ষিত



রাসেল আহমেদ,
লাস্টনিউজবিডি, ০৬ জুন, ঢাকা : বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশন কর্তৃক ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরের বাজেটোত্তর সংবাদত সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর তোপখানা রোডস্থ নির্মলসেন মিলনায়তনে উক্ত সংবাদ সম্মেলনে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন সংগঠনের সভাপতি মহউদ্দীন আহমেদ।

আরো উপস্থিত ছিলেন বাসদের কেন্দ্রীয় নেতা রাজেকুজ্জামান রতন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আবিদা আক্তার, দুর্নীতি প্রতিরোধ আন্দোলনের সভাপতি হারুন অর রশিদ খান, কর্মসংস্থান আন্দোলনের সভাপতি মোঃ দেলোয়ার হোসেন, বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিষ্ট ফোরামের সভাপতি কবীর চৌধুরী তন্ময়, সংগঠনের মহাসচীব এ্যডভোকেট আবু বকর সিদ্দিক, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক এ্যডভোকেট ইসরাত হাসান, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কাজী আমানুল্লাহ মাহফুজসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।
বক্তব্যের শুরুতে মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, আজকের আলোচনার মূল বিষয়বস্তুর অন্যতম হচ্ছে, তথ্য প্রযুক্তি খাতের পণ্য ও সেবা সমূহের মূল্য নির্ধারণ করে বাজার মনিটরিং করা, মোবাইল হ্যান্ডসেটের উপর বর্ধিত কর ১০.৭৪% প্রত্যাহার করা, মুঠোফোনের কলচার্জ ও ইন্টারনেটের উপর অর্পিত কর হ্রাস করা, মোবাইল ব্যাংকিং এর সার্ভিস চার্জ কমানো এবং ই-বর্জ্র্য পরিশোধন ও রি-সাইকেলিং করার নির্দেশনা বাজেটে অন্তর্ভুক্ত করে বাজেটকে গণমুখী বাজেট করা।

মূল বক্তব্যে তিনি বলেন, মহান জাতীয় সংসদে মাননীয় অর্থমন্ত্রী ৪ লক্ষ ২ শত ৬৬ কোটি টাকার বাজেট ঘোষনা করেন। মাননীয় অর্থমন্ত্রী কে এ বিশাল বাজেট ঘোষনা করার জন্য ধন্যবাদ জানাই। সেই সাথে ধন্যবাদ জানাই প্রযুক্তি খাতে ৮ হাজার ৬ কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ রাখার জন্য।

সেই সাথে ২০২৪ সালে জুন মাস পর্যন্ত তথ্য প্রযুক্তি খাতে কর অব্যাহতি দেয়া হয়েছে এটা ভাল দিক। যেসকল পণ্যের ক্ষেত্রে কর অব্যাহতি দেয়া হল সেসব হচ্ছে সাইবার নিরাপত্তা সেবা, সফট্ওয়্যাার নির্মান, সফট্ওয়্যার বা এপ্লিকেশন কাষ্টমাইজেশন, ওয়েব সাইট নির্মান, ওয়েব সাইট পরিচালনা, ডিজিটাল তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষন, সফটও্যয়ার টেষ্ট ল্যাব সেবা, চিকিৎসা ব্যবস্থাপত্র প্রতিলিপিকরণ এবং রোবট নিয়ন্ত্রিত সেবা।

তবে আমাদের অনুরোধ থাকবে এসকল সেবা বা পণ্য বিক্রির ক্ষেত্রে তদারকি ব্যবস্থা ও সর্বোচ্য মূল্য নির্ধারণ করা। তা না হলে সাধারণ জনগন এ সকল প্রযুক্তি সেবা ক্রয় এর ক্ষেত্রে প্রতারিত হবার সম্ভাবনা ৯৯ ভাগ। অন্যদিকে জনগন প্রতারিত হলে রাষ্ট্র যেমন জনগনকে কর সুবিধা দিতে পরল না আবার রাজস্ত আদায় করতে পারলো না।

এইবার বাজেটে মোট রাজস্ব আয় ২ লক্ষ ৯৩ হাজার ৪ শত ৯৪ কোটি টাকা ধরা হয়েছে। গত অর্থ বৎসরে মোট জিডিপির ৬.৫ ভাগ শুধু টেলিকম খাত থেকে এসেছিল। মাননীয় অর্থমন্ত্রীও স্বীকার করে বলেছেন বর্তমান সরকারের সবচেয়ে বড় আয়ের উৎস টেলি যোগাযোগ নিয়ন্ত্রন কমিশন। বর্তমানে সক্রিয় সিম প্রায় ১৩ কোটি আর ইন্টারনেট ব্যবহারকারী প্রায় ৭ কোটি। আবার এই ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ৯৪ ভাগে মুঠোফোন ভিত্তিক।

বর্তমান বিশ্বে মুঠোফোন ব্যবহারকারী দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান নবম। আর মেবাইল ব্যাংকিং এ বাংলাদেশ বিশ্বে ২য়। এশিয়া মহাদেশে প্রথম। তবে এ কথাও ঠিক ইন্টারনেট ব্যবহারকারী পিছিয়ে পড়া দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ৫৪তম। কারণ মূলত ৪টি। ১। ধীর গতির ইন্টারনেট সেবা, ২। উচ্চ মূল্যের ইন্টারনেট, ৩। ইন্টারনেট এর ব্যবহারযোগ্য হ্যান্ডসেট ও কম্টিউটারের দাম নাগালের বাইরে, ৪। পর্যাপ্ত প্রশিক্ষনের আভাব।

তিনি আরও বলেন, আমাদের সংগঠনের দীর্ঘদিনের দাবী গ্রাহকদের সুবিধা ও সামাজিক নিরাপত্তা বৃদ্ধি করে এ সেক্টরকে বিনিয়োগ বান্ধব করে ১৬ কোটি জনগনের জন্য সহজলভ্য করা। কিন্তু সরকার বরাবরের মতো এবারের বাজেটেও দেশের সবচাইতে বড় ভোক্তা খাতকে বঞ্চিত করেছে।

এ খাতে গ্রাহকদের প্রথমে যা প্রয়োজন তা হচ্ছে একটি হ্যান্ডসেট অথচ এই হ্যান্ডসেটের উপর পূর্বের ভ্যাট ১৫৮ শতাংশ, সম্পূরক শুল্ক ৫ শতাংশ, সারচার্জ ১ শতাংশ, অগ্রীম আয়কর ২ শতাংশ সহ মোট ২৩.৭৫ শতাংশ দিতে হতো। কিন্তু এবার বাজেটে সম্পূরক শুল্ক ৫ থেকে বাড়িয়ে ১০ শতাংশ ও ৫ শতাংশ বাজার মূল্যের উপর মূল্য সংযোজনের ১৫ শতাংশ মোট ৩৪.৫০ শতাংশ করা হয়েছে। তার মানে বৃদ্ধি পাচ্ছে ১০.৭৪ শতাংশ।

যদিও সরকার এ বাজেটে দেশে তৈরী কম্পিউটার, ল্যাপটপ ও মুঠোফোন উৎপাদনে উৎসাহিত করতে যন্ত্রাংশ আমদানীতে ভ্যাট ২৫ শতাংশের স্থলে ১ শতাংশ করা হয়েছে এটা ইতিবাচক। তবে মডেম, মেমরি কার্ড সহ বিভিন্ন একসেসরিজে শুল্ক বাড়িয়ে ১০ থেকে ২৫ শতাংশ করা হয়েছে। আমরা এই বৈরী শুল্ক প্রত্যাহার করতে অনুরোধ করছি। কারণ আমাদের দেশে মুঠোফোন ও একসেসোরিজ তৈরীর কোন শিল্প কারখানা গড়ে উঠেনি।

সেই সাথে দক্ষ জনবলের প্রচন্ড অভাব রয়েছে। তাই আমাদের পক্ষ থেকে সুপারিশ থাকবে দক্ষ জনবল ও দেশে শিল্প কারখানা গড়ে না ওঠা পর্যন্ত মুঠোফোন ও একসেসোরিজ আমদানীর উপর অতিরিক্ত সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহার করা হোক। তা না হলে ৪এ চালুর ক্ষেত্রে বাধাগ্রস্থ হবে দেশ জনগন উচ্চমূল্যে ৪এ সম্বলিত হ্যান্ডসেট ক্রয় করতে পারবেনা। সকলের জন্য ইন্টারনেট ব্যবহারযোগ্য করতে হলে স্বল্পমূল্যে হ্যান্ডসেট প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে হবে। অবৈধ পথে পূর্বেও হ্যান্ডসেট আমদানীর ফলে ফেইক আই এম ই আই নাম্বার সনাক্ত করতে না পারায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে এই সকল হ্যান্ডসেট ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এই ভ্যাট যদি বহাল থাকে তাহলে অবৈধ পথে আমদানী উৎসাহিত হবে।

দ্বিতীয়ত, মুঠোফোনে কথা বলার ক্ষেত্রে ভ্যাট কমানো নিয়ে মাননীয় অর্থমন্ত্রী কোন হস্তক্ষেপ না করায় আমরা হতাশাগ্রস্থ হয়েছি। বর্তমানে যে চক্রবৃদ্ধিহারে শুল্ক আদায় করা হচ্ছে যেমন ভ্যাট ১৫ শতাংশ, সম্পূরক শুল্ক ৫ শতাংশ, সারচার্জ ১ শতাংশ মোট ২১.৭৫। এরপরও রয়েছে সরকারের রাজস্ব ভাগাভাগি, অপারেটরদের করপোরেট ট্যাক্স, আই সি এক্স, আইজিডব্লিও, এনটিটিএন সহ মধ্যস্বত্তভোগীদের ট্যাক্সও এই গ্রাহকদর কাছ থেকেই আদায় করা হয় যার পরিমান প্রায় ৫২ শতাংশ যা কিনা একজন গ্রাহককেই পরিশোধ করতে হয়। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি দৃষ্টি আকর্ষন করে বলছি গ্রাহকদের প্রতি এটি অবিচার করা হচ্ছে। বিষয়টি বিবেচনা করার জন্য সবিনয় অনুরোধ করছি।

এছাড়াও অপারেটরদের অনিয়ন্ত্রিত কলড্রপ, নেটওয়ার্ক বিরম্বনা, অফারের প্রলোভনের ফাঁদে ফেলে গ্রাহকদের অর্থ লোটপাট করা বন্ধ করতে হবে।

তৃতীয়ত, বর্তমানে ইন্টারনেট ছাড়া কিছু ভাবা যায় না। কিন্তু একদিকে ধীরগতির ইন্টারনেট সেবা অন্যদিকে কলচার্জের মতই সরকারের রাজস্ব আদায় এবং অপারেটরদের অতি মুনাফার কারণে ইন্টারনেট সেবা থেকে গ্রাহকরা বঞ্চিত ও প্রতারিত হয়ে আসছে। এ বিষয়ে মাননীয় অর্থমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করছি।

চতুর্থত, মোবাইল ব্যাংকিং এ বাংলাদেশ ২য় অবস্থানে হলেও এর সার্ভিস চার্জ বিশ্বের সবচাইতে বেশী। প্রান্তিক জনগোষ্ঠির অর্থিক লেনদেনের সেবা দেয়ার জন্য যে মোবাইল ব্যাংকিং তার সাধারন প্রান্তিক জনগোষ্ঠির জন্য মরন সমস্যা হয়ে দাড়িয়েছে। এবার বাজেটে মোবাইল ব্যাংকিং এর সার্ভিস চার্জ নিয়ে কোন বক্তব্য না থাকলেও রিচার্জ ব্যবসায়ী ও মোবাইল ব্যাংকিং এজেন্টের জন্য টিআইএন সার্টিফিকেট নেয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। আমরা সকলের অবগতির জন্য জানাচ্ছি, এই নিয়মটি পূর্বেও ছিল কিন্তু মনিটরিং এর দূর্বলতার কারণে অপারেটর এবং এই ব্যবসায়ীরা টিআইএন ছাড়াই ব্যবসা পরিচালনা করছে। আমরা মাননীয় অর্থমন্ত্রীকে মোবাইল ব্যাংকিং এর সার্ভিস চার্জ কমানোর অনুরোধ করছি।

পঞ্চমত, ই-বর্জ পরিশোধন বা রিসাইকেলিং করার কোন বক্তব্যই বাজেটে পরিলক্ষিত হয়নি। এটি অত্যন্ত দুঃখজনক। কারণ ই-বর্জ আগামীতে দেশের পরিবেশের জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে দাড়াবে।

তাই মাননীয় অর্থমন্ত্রীকে এখন থেকেই ই-বর্জ পরিশোধনাগার তৈরী করার জন্য এই বাাজেটেই দিক নির্দেশনা প্রদান করার জন্য অনুরোধ করছি।

লাস্টনিউজবিডি, এ এস

Print Friendly, PDF & Email

Comments are closed

পেপার কর্ণার
Lastnewsbd.com
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন >

ফাইজার, অক্সফোর্ড, রাশিয়ান, চায়নার ভ্যাকসিনগুলোকে আপনি কি করোনা প্রতিরোধক কার্যকর টিকা বলে মনে করেন?

View Results

Loading ... Loading ...
আর্কাইভ
মতামত
যুবলীগের নতুন নেতৃত্বঃ পরশের পরশ ছোঁয়ায় জেগে উঠুক কোটি তরুণ
।।মানিক লাল ঘোষ।।"আমার চেষ্টা থাকবে যুব সমাজ যেনো...
বিস্তারিত
সাক্ষাৎকার
সফল হওয়ার গল্প, সাফল্যের পথ
।।আলীমুজ্জামান হারুন।। ১৯৮১ সালে যখন নিটল মটরসের য...
বিস্তারিত
জেলার খবর
Rangpur

    রংপুরের খবর

  • দিবালোকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জমি দখলের অভিযোগ
  • রেলের উচ্ছেদ হওয়া ১৫০ পরিবারের পূণর্বাসন বন্দোবস্ত
  • বিরল প্রজাতির শুকুন পাখি উদ্ধার

ফাইজার, অক্সফোর্ড, রাশিয়ান, চায়নার ভ্যাকসিনগুলোকে আপনি কি করোনা প্রতিরোধক কার্যকর টিকা বলে মনে করেন?

  • না (100%, ১ Votes)
  • মতামত নাই (0%, ০ Votes)
  • হ্যা (0%, ০ Votes)

Total Voters:

Start Date: নভেম্বর ২৯, ২০২০ @ ৫:২৮ অপরাহ্ন
End Date: No Expiry

ফাইজার, অক্সফোর্ড, রাশিয়ান ইন, চায়না ভ্যাকসিনগুলোকে আপনি কি করোনা প্রতিরোধক কার্যকর টিকা বলে মনে করেন?

  • মতামত নাই (0%, ০ Votes)
  • না (0%, ০ Votes)
  • হ্যা (100%, ০ Votes)

Total Voters:

Start Date: নভেম্বর ২৯, ২০২০ @ ৪:৫৭ অপরাহ্ন
End Date: No Expiry

কোন দেশের কোন কোম্পনীর করোনা ভ্যাকসিন আপনার পছন্দের এবং কার্যকর বলে মনে করেন ?

  • হ্যা (100%, ১ Votes)
  • না (0%, ০ Votes)
  • মতামত নাই (0%, ০ Votes)

Total Voters:

Start Date: নভেম্বর ২৯, ২০২০ @ ৮:৫৮ পূর্বাহ্ন
End Date: No Expiry

আপনি কি মনে করেন বাসে আগুন দিয়ে কি সরকার পরিবর্তন করা যাবে ?

  • না (63%, ১৫ Votes)
  • হ্যা (29%, ৭ Votes)
  • মতামত নাই (8%, ২ Votes)

Total Voters: ২৪

Start Date: নভেম্বর ১৩, ২০২০ @ ২:৫৪ অপরাহ্ন
End Date: No Expiry

How Is My Site?

  • Good (0%, ০ Votes)
  • No Comments (0%, ০ Votes)
  • Can Be Improved (0%, ০ Votes)
  • Bad (0%, ০ Votes)
  • Excellent (100%, ০ Votes)

Total Voters:

Start Date: নভেম্বর ১৩, ২০২০ @ ২:৫৪ অপরাহ্ন
End Date: No Expiry