Wednesday, 12th September , 2018, 09:16 pm,BDST
Print Friendly, PDF & Email

বিলুপ্তির পথে কুয়াকাটার জাতীয় উদ্যান



গোফরান পলাশ,লাস্টনিউজবিডি,১২ সেপ্টেম্বর,পটুয়াখালী প্রতিনিধি: বঙ্গোপসাগরের অব্যাহত ভাঙ্গনে কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকতের দর্শনীয় একাধিক স্পটের পর এবার বিলুপ্তির পথে ‘কুয়াকাটা জাতীয় উদ্যান’। আর এ জাতীয় উদ্যানের অন্যতম আকর্ষণ ঝাউবাগানের ৭০ শতাংশ চলতি বর্ষা মৌসুমে সমুদ্র গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। আগামী পূর্নিমা কিংবা অমাবস্যার জো’তে বাকী অংশটুকুও সমুদ্রে হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করেছেন স্থানীয়রা। সমুদ্রের বিক্ষুদ্ধ ঢেউয়ের ঝাপটায় ইতোমধ্যেই ঝাউবাগানের শত শত গাছ উপড়ে পড়ে আছে সমুদ্র সৈকতে। এতে সৈকতে পর্যটকদের পায়ে হেঁটে চলাচল অনেকটা দুস্কর হয়ে উঠেছে। এছাড়া কুয়াকাটায় পর্যটকদের বিনোদন ও প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার জন্য তৈরী বন বিভাগের জাতীয় উদ্যান বিলুপ্তির পথে এসে দাড়িয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সমুদ্রে জোয়ারের পানি অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পেয়ে বিক্ষুদ্ধ ঢেউ আঁচড়ে পড়ছে সৈকতে। সমুদ্রের অব্যাহত এ ঢেউয়ের তান্ডবে জাতীয় উদ্যানের প্রধান আকর্ষন ঝাউবাগানের অসংখ্য গাছ সমুদ্র সৈকতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। সৈকতে ঘুরতে আসা পর্যটকরা সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছেন। বিশেষ করে সূর্যোদয় দেখতে যাওয়ার পথে পর্যটকরা প্রতিনিয়ত আহত হচ্ছেন। ভোর রাতের দিকে গঙ্গামতি যাওয়ার পথে সৈকতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ঝাউগাছের সাথে ধাক্কা লেগে প্রায়শ:ই আহত হচ্ছে পর্যটকরা। এতকিছুর পরেও এগুলো সরানো কিংবা জাতীয় উদ্যানটি রক্ষণাবেক্ষণের কোন উদ্যোগ নেই।
এদিকে জাতীয় উদ্যানের দৃষ্টিনন্দন লেকটি পরিণত হয়েছে কচুরিপানায় ভর্তি বদ্ধ জলাশয়ে। চারদিকের নানা রঙের পাতাবাহার গাছগুলো নেই, যেন পরিণত হয়েছে জঙ্গলে। লেকটির মাঝখানের কাঠের ব্রিজটি ছিন্নভিন্ন হয়ে আছে। ৬টি প্যাডেল বোটের হদিস নেই। বাঁধানো ঘাটগুলোতে পুরো শ্যাওলার আস্তরণ। পিকনিক স্পটের টিনের ছাউনির ঘরগুলোর মধ্যে অধিকাংশ ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। লেকটি ভ্রমণের মূল সড়কটি বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। বনবিভাগের চরম উদাসীনতায় কুয়াকাটা জাতীয় উদ্যানের এ হাল হয়েছে। কুয়াকাটা পর্যটন এলাকার সবচেয়ে সৌন্দর্যমন্ডিত স্পট ছিল জাতীয় উদ্যানটি। যা এখন ধ্বংসের শেষপ্রান্তে পৌঁছেছে। সিডর আইলার মতো সুপার সাইক্লোন কিংবা মহাসেনের মতো জলোচ্ছ্বাসে কয়েক দফা বিধ্বস্ত হয়েছে এটি। তারপরও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য উপভোগে পর্যটক, দর্শনার্থী ভিড় করতো এখানে।

কুয়াকাটা জিরো পয়েন্ট থেকে মাত্র দুই কিলোমিটার দুরে সৈকত লাগোয়া জাতীয় উদ্যানের অবস্থান। চারদিকে ঝাউবাগানে ঘেরা ছিল এটি। মাঝে মাঝে দেয়া আছে বিশ্রামের জন্য বেঞ্চি। তার উপরে রয়েছে সিমেন্টের বড় ধরনের স্থায়ী ছাতা। ইকোপার্কটি বাইরে থেকে গহীন অরণ্য মনে হলেও মাঝখান দিয়ে একাধিক চলার পথ ছিল। ছিল ছোট্ট ছোট্ট বক্স কালভার্ট। এরই মধ্যে বিশাল লেক। লেকের মাঝখান দিয়ে চলাচলের ছিল একটি কাঠের ব্রিজ। লেকটির দুইপাড়ে বিভিন্ন প্রজাতির বনজ, ফলজ, সৌন্দর্য বর্ধনকারী গাছের সমাহার ছিল। লেকের মধ্যে বনবিভাগের ফাইবার প্যাডেল বোট ছিল। বোটের মধ্যে স্বপরিবারে ঘোরার সুযোগ ছিল। ইচ্ছে করলে পিকনিক পার্টির বহর ব্যবহার করতো উদ্যানের সবুজ চত্বর। এখানে বেড়াতে আসা পর্যটককে উদ্যানটি বিশেষভাবে আকৃষ্ট করতো। ৪/৫ বছর আগে কুয়াকাটা ইকোপার্ক ও ফাতড়ার বনাঞ্চল এলাকা জাতীয় উদ্যানের আওতায় ন্যস্ত করা হয়। বিদ্যুত লাইন খূঁটিসহ সব লন্ডভন্ড অবস্থায় পড়ে আছে। শুধু একটি গেটে লেখা রয়েছে কুয়াকাটা জাতীয় উদ্যান।

জানা যায়, পর্যটন শিল্পের বিকাশের লক্ষ্যে কুয়াকাটায় জাতীয় উদ্যান করা হয়। যার মধ্যে কুয়াকাটার ইকোপার্ক ছাড়াও রয়েছে ফাতড়ার বিশাল বনাঞ্চল। প্রায় ১৮ হাজার একর এলাকা নিয়ে উদ্যানের অবস্থান। বনাঞ্চল ছাড়াও বিশাল বনভূমি ইকোপার্কের এরিয়ায় রয়েছে। পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে প্রাথমিক পর্যায়ে দুই কোটি ৮৯ লাখ টাকা ব্যয় করে বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ করা হয়। প্রথম দফায় ২১টি ধাপের মধ্যে ২০টির কাজ সম্পন্ন করতে ৬৩ লাখ টাকার ব্যয় করা হয়। পরবর্তী ধাপে করা হয় কাঠের ব্রিজ। এছাড়া প্রধান ফটক নির্মাণ, মেঠোপথ প্রশস্থকরণ, বক্স ও পাইপ কালভার্ট, ভূমির উন্নয়ন, গোল ঘর ও জেটি নির্মাণ, ফিডার রোড, কার পার্কিং সুবিধা, পিকনিক শেড, টিকেট কাউন্টার, এপ্রোচ রোড, বিশুদ্ধ পানির সংস্থান, অভ্যন্তরীণ পানি সরবরাহ, সিটিং বেঞ্চ, লেক-পুকুর খনন ও বাইরের বিদ্যুতায়ন।

এছাড়া ওই সময় প্রাকৃতিক জীব বৈচিত্র রক্ষায় ইকোপার্ক এলাকায় ম্যানগ্রোভ ও নন-ম্যানগ্রোভ এবং শোভা বর্ধনকারী বাগান, বন্য প্রাণীর আবাসস্থল উন্নয়নে বাগান সৃজনসহ ৪৭ হেক্টর বাগানে নারিকেল, ঝাউ, আমলকি, অর্জুন, জারুল, হিজল, চালিতা, পেয়ারা, জাম, হরিতকি, কাঠবাদাম, মহুয়া, কামিনি, লালকরমচা, পলাশসহ বিভিন্ন প্রজাতির লক্ষাধিক গাছের চারা রোপণ করা হয়। এর বাইরে এক হাজার ৬শ’ ৬৭টি নারিকেল চারাও লাগান হয়েছে। কিন্তু এসবের ৭০ শতাংশ নেই। বঙ্গোপসাগরের ঢেউয়ের তান্ডবে ইকোপার্ক সংলগ্ন নারিকেল বাগান, ঝাউবনসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ ইতোমধ্যেই সাগর গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। শুধু মূল ফটকে একটি গেট রয়েছে। অরক্ষিত একটি বাউন্ডারি রয়েছে। গেটে কোন নিরাপত্তারক্ষী থাকছে না। ভেতরে একটি পাকা টংঘর তালাবদ্ধ অবস্থায় পড়ে আছে। যেন কুয়াকাটার সবচেয়ে দর্শনীয় একটি স্পট’র দেখভালের কোন কর্তৃপক্ষ নেই।

কুয়াকাটা ভ্রমনে আসা একাধিক পর্যটক জানান, ইকোপার্কের মধ্যে কাঠের ব্রিজগুলো একেবারেই ভাঙ্গাচোরা। সামান্য বৃষ্টি হলে রাস্তা কর্দমাক্ত হয়ে যায়। ফলে পর্যটকদের চলাফেরায় বিঘ্ন ঘটে।

বনবিভাগের মহিপুর রেঞ্জ কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, জাতীয় উদ্যানের সমস্যাগুলো চিহিৃত করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে। সৈকতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা গাছগুলো স্বল্প সময়ের মধ্যে সরানো হবে। এগুলো উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পরামর্শে এতদিন অপসারণ করা হয়নি। কারণ ঢেউয়ের প্রাথমিক ঝাপটা এগাছ গুলোর উপর এসে পড়ে।

লাস্টনিউজবিডি/আনিছ

Print Friendly, PDF & Email
Print Friendly, PDF & Email

Comments are closed

diamond world
Rupali bank ltd
exim bank
Lastnewsbd.com
পেপার কর্ণার
Lastnewsbd.com
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন >

আপনি কি মনে করেন যে কোন পরিস্থিতিতে বিএনপি নির্বাচন করবে ?

ফলাফল দেখুন

Loading ... Loading ...
আর্কাইভ
মতামত
সংবাদ সম্মেলনে কেন এত চাটুকারিতা
।।নঈম নিজাম।। সংবাদ সম্মেলনে একজন সংবাদকর্মীর ক...
বিস্তারিত
সাক্ষাৎকার
দিল্লীর খাদ্যজাত পন্য মেলায় ভারত-বাংলাদেশ চেম্বারকে অামন্ত্রন
লাস্টনিউজবিডি,৩রা সেপ্টেম্বর,নিউজ ডেস্ক: ট্রেড কাউ...
বিস্তারিত
জেলার খবর
Rangpur

    রংপুরের খবর

  • রানীশংকৈল অনলাইন জার্নালিষ্ট অ্যাসোসিয়েশনের নেতৃত্বে আকাশ-শাওন
  • দিনাজপুর দক্ষিন জেলা জামায়াতের আমীর আটক
  • সাইকেলে ৬৪ জেলা ভ্রমণ করলেন ঠাকুরগাঁওয়ের আহসান হাবিব

আপনি কি মনে করেন যে কোন পরিস্থিতিতে বিএনপি নির্বাচন করবে ?

  • মতামত নাই (2%, ১ Votes)
  • না (28%, ১৩ Votes)
  • হ্যা (70%, ৩৩ Votes)

Total Voters: ৪৭

অাপনি কি কোটা সংস্কারের পক্ষে ?

  • মতামত নেই (3%, ১ Votes)
  • না (8%, ৩ Votes)
  • হ্যা (89%, ৩৩ Votes)

Total Voters: ৩৭

খালেদা জিয়ার মামলা লড়তে বিদেশি আইনজীবীর কোন প্রয়োজন নেই' বিএনপি নেতা আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেনের সাথে - আপনিও কি একমত ?

  • মতামত নাই (9%, ১ Votes)
  • না (27%, ৩ Votes)
  • হ্যা (64%, ৭ Votes)

Total Voters: ১১

আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে বিদেশিদের কোনো উপদেশ বা পরামর্শের প্রয়োজন নেই বলে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের মন্তব্য যৌক্তিক বলে মনে করেন কি?

  • মতামত নাই (7%, ১ Votes)
  • হ্যা (20%, ৩ Votes)
  • না (73%, ১১ Votes)

Total Voters: ১৫

এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব) অলি আহমাদ বলেন, এরশাদকে খুশি করতে বেগম জিয়াকে নাজিমউদ্দিন রোডের জেলখানায় নেয়া হয়েছে। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?

  • মতামত নাই (8%, ৫ Votes)
  • না (27%, ১৬ Votes)
  • হ্যা (65%, ৩৮ Votes)

Total Voters: ৫৯

আপনি কি মনে করেন আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহন করবে ?

  • না (13%, ৫৪ Votes)
  • হ্যা (87%, ৩৬২ Votes)

Total Voters: ৪১৬

আপনি কি মনে করেন বিএনপির‘র সহায়ক সরকারের রুপরেখা আদায় করা আন্দোলন ছাড়া সম্ভব ?

  • হ্যা (32%, ৪৫ Votes)
  • না (68%, ৯৫ Votes)

Total Voters: ১৪০

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের বিষয়টি সম্পূর্ণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপরে নির্ভরশীল, এ বিষয়ে অাপনার মন্তব্য কি ?

  • মন্তব্য নাই (7%, ২ Votes)
  • হ্যা (26%, ৭ Votes)
  • না (67%, ১৮ Votes)

Total Voters: ২৭

আপনি কি মনে করেন নির্ধারিত সময়ের আগে আগাম নির্বাচন হবে?

  • মন্তব্য নাই (7%, ১০ Votes)
  • হ্যা (31%, ৪৬ Votes)
  • না (62%, ৯১ Votes)

Total Voters: ১৪৭

হেফাজতকে বড় রাজনৈতিক দল বানানোর চেষ্টা চলছে বলে মন্তব্য করেছেন নাট্যব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার। আপনি কি তার সাথে একমত?

  • মতামত নাই (10%, ৩ Votes)
  • না (34%, ১০ Votes)
  • হ্যা (56%, ১৬ Votes)

Total Voters: ২৯

“আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিলে দেশে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা কমে যাবে ”সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সাথে কি অাপনি একমত ?

  • মতামত নাই (9%, ৩ Votes)
  • না (32%, ১১ Votes)
  • হ্যা (59%, ২০ Votes)

Total Voters: ৩৪

আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধুর নাম ব্যবহার করে যারা সংগঠনের নামে দোকান খুলে বসেছে, তাদের ধরে ধরে পুলিশে দিতে হবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের আপনার প্রতিক্রিয়া কি ?

  • মতামত নাই (7%, ৩ Votes)
  • না (10%, ৪ Votes)
  • হ্যা (83%, ৩৫ Votes)

Total Voters: ৪২

ড্রাইভাররা কি আইনের উর্ধে ?

  • মতামত নাই (2%, ১ Votes)
  • হ্যা (14%, ৭ Votes)
  • না (84%, ৪৩ Votes)

Total Voters: ৫১

সার্চ কমিটিতে রাজনৈতিক দলের কেউ নেই- ওবায়দুল কাদেরের এ বক্তব্য সমর্থন করেন কি?

  • মতামত নাই (5%, ৩ Votes)
  • হ্যা (31%, ১৭ Votes)
  • না (64%, ৩৫ Votes)

Total Voters: ৫৫

ইসি গঠন নিয়ে রস্ট্রপতির সংলাপ রাজনীতিতে একটি ইতিবাচক মাত্রা আসবে বলে কি আপনি মনে করেন ?

  • মতামত নাই (8%, ৭ Votes)
  • না (34%, ৩২ Votes)
  • হ্যা (58%, ৫৪ Votes)

Total Voters: ৯৩

Do you support DD?

  • yes (0%, ০ Votes)
  • no (100%, ০ Votes)

Total Voters:

How Is My Site?

  • Excellent (0%, ০ Votes)
  • Bad (0%, ০ Votes)
  • Can Be Improved (0%, ০ Votes)
  • No Comments (0%, ০ Votes)
  • Good (100%, ০ Votes)

Total Voters: