Wednesday, 4th October , 2017, 09:22 am,BDST
Print Friendly, PDF & Email

শেখ হাসিনার মন্ত্রিসভায় ঠাই হবে বিএনপিরও!



লাস্টনিউজবিডি, ০৪ অক্টোবর, নিউজ ডেস্ক: সংসদের বাইরে থাকা অন্যতম বড় দল বিএনপিসহ ইসি সংলাপে এ পর্যন্ত অংশগ্রহণকারী বেশীর ভাগ দলের দাবিকৃত নির্বাচনকালীন ‘সহায়ক সরকার’ সংবিধানের মধ্যে থেকেও গঠন করা যেতে পারে বলে মত দিয়েছেন দেশের আইনজ্ঞ ও সংবিধান বিশ্লেষকরা। তবে এক্ষেত্রে বড় দুটি দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে নমনীয় হতে হবে।

এক্ষেত্রে নির্বাচনের আগে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ছোট্ট একটি মন্ত্রীসভা গঠণ করা হতে পার। যেখানে বিএনপি’র অংশগ্রহণও থাকবে। শেখ হাসিনা নেতৃত্বাধীন এই সরকারই নির্বাচনীকালীন সহায়ক সরকার হিসেবে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনকে সহায়তা করবে। বিশ্লেষকদের মতে, এ পদ্ধতিতে গেলে বিএনপির দাবি পূরণ করেই সংবিধানের মধ্যে থেকেই নির্বাচন করা সম্ভব হবে। ফলে একদিকে যেমন নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত হবে অন্যদিকে অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিবেশও তৈরী হবে। বিরোধী দলগুলো আন্দোলনমুখীও হবে না।

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচন কমিশন (ইসি) আয়োজিত সংলাপে এ পর্যন্ত অংশগ্রহণকারী বেশির ভাগ দল ‘নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকার’ গঠনের দাবি জানিয়েছে। যদিও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও তাদের রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির সঙ্গে এখনও মতবিনিময় হয়নি। গত ৩১ জুলাই সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, ১৬ ও ১৭ আগস্ট গণমাধ্যম প্রতিনিধির সঙ্গে মতবিনিময় করেছে ইসি। আর ২৪ আগস্ট থেকে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে মত বিনিময় শুরু হয়েছে। অক্টোবর পর্যন্ত নিবন্ধিত ৪০টি দলের সঙ্গে সংলাপ হওয়ার কথা রয়েছে।

সহায়ক সরকার গঠণ বিষয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক অধ্যাপক তারেক সামসুর রেহমান বলেন, সংবিধানের মধ্যে থেকেই বিএনপিসহ সব দলকে নিয়ে নির্বাচন করা সম্ভব। সরকার, বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী চাইলে সংবিধান সংশোধন না করেই নির্বাচনকালীন সরকারে বিএনপির প্রতিনিধিত্ব থাকার সুযোগ করে দিতে পারেন। তিনি বলেন, এজন্য বিএনপিকেও নমনীয় হতে হবে। প্রধানমন্ত্রীকেও কিছুটা ছাড় দিতে হবে। যেহেতু বিএনপি সংসদে নেই, সেহেতু ৩ থেকে ৪টি সংসদীয় আসনে উপনির্বাচনের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। সেই উপ-নির্বাচনে বিএনপির প্রাথীরা বিজয়ী হয়ে এমপি হিসেবে মন্ত্রিসভায় যোগ দিতে পারে। সংবিধান অনুযায়ী শেখ হাসিনাই প্রধানমন্ত্রী থাকবেন। ১০ সদস্যের ছোট মন্ত্রিসভা করে সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী দলগুলো থেকেই মন্ত্রীসভার সদস্যদের নেয়া যেতে পারে। তবে নিরপেক্ষতার স্বার্থে প্রধানমন্ত্রী ছাড়া ওই সরকারের কাউকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ দেয়া যাবে না বলেও মত দেন তিনি।

সংবিধানের উদ্বৃতি দিয়ে তারেক সামসুর রেহমান বলেন, সংবিধানে বলা আছে, নির্বাচনকালে সরকার নির্বাচন কমিশনকে সর্বাÍক সহায়তা করবে। তফসিল ঘোষণার পর সরকার কমিশনের সঙ্গে পরামর্শ না করে বদলি পদায়নসহ কোনও কাজ করতে পারবে না। বরং ওই সময় নির্বাচনের স্বার্থে কমিশন যা চাইবে, তা দিতে বাধ্য থাকবে সরকার। যা ভারত, যুক্তরাজ্যসহ বিভিন্ন উন্নত দেশে রয়েছে। এসব বিষয় কিতাবে লিপিবদ্ধ না রেখে বাস্তবায়ন করার জন্য কাজ করা উচিত বিএনপিসহ রাজনৈতিক দলগুলোর। সংবিধানে দেয়া নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতার প্রয়োগ নিশ্চিত করতে পারলে সহায়ক সরকার ছাড়াও সাংবিধানিক সুবিধা আপনা-আপনিই ঘরে আসবে বিএনপির। তাতে আওয়ামী লীগের ওপরই উল্টো চাপ সৃষ্টি হবে।

এদিকে সংবিধানের বিধান বাস্তবায়ন করার পক্ষে আন্দোলন করলেই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির জন্য সুযোগ তৈরি হবে বলে মনে করছেন আইন বিশ্লেষকরা। তাদের মতে, সহায়ক সরকারের দাবিতে না গিয়ে বরং ইসির স্বাধীনতাবিষয়ক সংবিধানের ১১৮ (৪) অনুচ্ছেদটি হুবহু নিশ্চিত করার আন্দোলন করলে বিএনপির জন্য তা সুফল বয়ে আনতে পারে। সংবিধানের এই অনুচ্ছেদে বলা আছে, ‘নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে স্বাধীন থাকিবে এবং কেবল এই সংবিধান ও আইনের অধীন হইবে।’ ইসির স্বাধীনতা বিষয়ক এই অনুচ্ছেদটি বাস্তবায়নে বিএনপিকে জনমত গড়ে তুলতে হবে।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে গেলে সংবিধানের ভেতরে থেকে বিএনপির লাভবান হওয়ার মতো আরও একাধিক ধারা সংবিধানে রয়েছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। এক্ষেত্রে তারা সংবিধানের ১২৬ অনুচ্ছেদের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন। সংবিধানের ১২৬ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে ‘নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব পালনে সহায়তা করা সকল নির্বাহী কর্তৃপক্ষের কর্তব্য হইবে।’ এই অনুচ্ছেদের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে সংশ্লিষ্টরা বলেন, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সরকারের বিভাগ ও দফতরগুলো কার্যত, ইসির অধীনে চলে যাবে। এক্ষেত্রে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীরা ইসির নির্দেশনা মেনে চলতে বাধ্য থাকবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অনেকাংশে নিরপেক্ষ থাকতে বাধ্য হবে। আওয়ামী লীগ-বিএনপি প্রায় সমান অবস্থান থাকবে।

এ বিষয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা নির্বাচনী রোডম্যাপ প্রকাশকালে বলেন, ‘ইসির জন্য যেসব আইন-কানুন রয়েছে, সেগুলো আমাদের জন্য যথেষ্ট। তবে দেখার বিষয় হচ্ছে, আমরা এটার প্রয়োগ করতে পারছি কিনা। তার জন্য আমাদের দায়িত্ব রয়েছে। আবার সংক্ষুব্ধ ব্যক্তিদেরও দায়িত্ব রয়েছে সুযোগসুবিধা গ্রহণ করা। তারা এগিয়ে এলে আমাদের নির্বাচনি আইন-কানুন প্রয়োগ করতে সুবিধা হয়।’

 

লাস্টনিউজবিডি/এমবি

Print Friendly, PDF & Email

Comments are closed

diamond world
Rupali bank ltd
exim bank
Lastnewsbd.com
পেপার কর্ণার
Lastnewsbd.com
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন >

আপনি কি মনে করেন আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহন করবে ?

ফলাফল দেখুন

Loading ... Loading ...
আর্কাইভ
মতামত
প্রধানমন্ত্রীকে আপা বলা যায়, ইউএনওকে নয়!
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে যদি ক্ষেত্রবিশেষে ‘আপা’...
বিস্তারিত
সাক্ষাৎকার
সফল হওয়ার গল্প, সাফল্যের পথ
।।আলীমুজ্জামান হারুন।। ১৯৮১ সালে যখন নিটল মটরসে...
বিস্তারিত
জেলার খবর
Rangpur

    রংপুরের খবর

  • রংপুরে আগুন পোহাতে গিয়ে দগ্ধ আরো ৪ জনের মৃত্যু
  • রংপুরে মাসিক অপরাধ ও আইন শৃঙ্খলা পর্যালোচনায় পুলিশের সভা
  • এমপি হতে চান বেবী নাজনীন
  • শীতে আগুন পোহাতে গিয়ে দগ্ধ দুই নারীর মৃত্যু
  • দিনাজপুরে ফেনসিডিলসহ মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার

আপনি কি মনে করেন আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহন করবে ?

  • না (13%, ৪২ Votes)
  • হ্যা (87%, ২৭২ Votes)

Total Voters: ৩১৪

আপনি কি মনে করেন বিএনপির‘র সহায়ক সরকারের রুপরেখা আদায় করা আন্দোলন ছাড়া সম্ভব ?

  • হ্যা (32%, ৪৫ Votes)
  • না (68%, ৯৫ Votes)

Total Voters: ১৪০

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের বিষয়টি সম্পূর্ণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপরে নির্ভরশীল, এ বিষয়ে অাপনার মন্তব্য কি ?

  • মন্তব্য নাই (7%, ২ Votes)
  • হ্যা (26%, ৭ Votes)
  • না (67%, ১৮ Votes)

Total Voters: ২৭

আপনি কি মনে করেন নির্ধারিত সময়ের আগে আগাম নির্বাচন হবে?

  • মন্তব্য নাই (7%, ১০ Votes)
  • হ্যা (31%, ৪৬ Votes)
  • না (62%, ৯১ Votes)

Total Voters: ১৪৭

হেফাজতকে বড় রাজনৈতিক দল বানানোর চেষ্টা চলছে বলে মন্তব্য করেছেন নাট্যব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার। আপনি কি তার সাথে একমত?

  • মতামত নাই (10%, ৩ Votes)
  • না (34%, ১০ Votes)
  • হ্যা (56%, ১৬ Votes)

Total Voters: ২৯

“আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিলে দেশে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা কমে যাবে ”সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সাথে কি অাপনি একমত ?

  • মতামত নাই (9%, ৩ Votes)
  • না (32%, ১১ Votes)
  • হ্যা (59%, ২০ Votes)

Total Voters: ৩৪

আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধুর নাম ব্যবহার করে যারা সংগঠনের নামে দোকান খুলে বসেছে, তাদের ধরে ধরে পুলিশে দিতে হবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের আপনার প্রতিক্রিয়া কি ?

  • মতামত নাই (7%, ৩ Votes)
  • না (10%, ৪ Votes)
  • হ্যা (83%, ৩৫ Votes)

Total Voters: ৪২

ড্রাইভাররা কি আইনের উর্ধে ?

  • মতামত নাই (2%, ১ Votes)
  • হ্যা (14%, ৭ Votes)
  • না (84%, ৪৩ Votes)

Total Voters: ৫১

সার্চ কমিটিতে রাজনৈতিক দলের কেউ নেই- ওবায়দুল কাদেরের এ বক্তব্য সমর্থন করেন কি?

  • মতামত নাই (5%, ৩ Votes)
  • হ্যা (31%, ১৭ Votes)
  • না (64%, ৩৫ Votes)

Total Voters: ৫৫

ইসি গঠন নিয়ে রস্ট্রপতির সংলাপ রাজনীতিতে একটি ইতিবাচক মাত্রা আসবে বলে কি আপনি মনে করেন ?

  • মতামত নাই (8%, ৭ Votes)
  • না (34%, ৩২ Votes)
  • হ্যা (58%, ৫৪ Votes)

Total Voters: ৯৩

Do you support DD?

  • yes (0%, ০ Votes)
  • no (100%, ০ Votes)

Total Voters:

How Is My Site?

  • Excellent (0%, ০ Votes)
  • Bad (0%, ০ Votes)
  • Can Be Improved (0%, ০ Votes)
  • No Comments (0%, ০ Votes)
  • Good (100%, ০ Votes)

Total Voters: